৬২ বছর বয়সী চিকিৎসক শরীফ ফাত্তাহ বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নিউজিল্যান্ডের নাগরিক। ছবি : সংগৃহীত

অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে যৌন হয়রানির দায়ে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এক চিকিৎসক। মামলার পরবর্তী শুনানিতে তার সাজা ঘোষণা করবেন আদালত।

১৫ মে বুধবার শুনানি শেষে শরীফ ফাত্তাহ নামের ওই চিকিৎসককে দোষী সাব্যস্ত করেন সিডনির স্থানীয় একটি আদালত।

শরীফ ফাত্তাহর বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির ৩০টি অভিযোগ আনা হয়। এর মধ্যে ১৮টিতে তাকে দোষী সাব্যস্ত করেন আদালত। অর্থাৎ ১৮টি অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হয়েছে।

১৯ থেকে ৪০ বছর বয়সী ১৬ জন নারী শরীফ ফাত্তাহর বিরুদ্ধে আদালতে সাক্ষ্য দিয়েছেন।

৬২ বছর বয়সী চিকিৎসক শরীফ ফাত্তাহ বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নিউজিল্যান্ডের নাগরিক। তিনি সিডনিতে জেনারেল প্র্যাকটিশনার হিসেবে কর্তব্যরত ছিলেন। তিনি সিডনিতে ক্যামডেন হেলথ কেয়ার সেন্টারে চিকিৎসকের দায়িত্ব পালন করছিলেন। ২০১৬ সালে তিনি সেন্টারটিতে যোগ দিয়েছিলেন।

শরীফ ফাত্তাহর বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি চিকিৎসার সময় অনাবশ্যক পরীক্ষার নাম করে নারী রোগীদের সঙ্গে আপত্তিকর আচরণ করতেন।

২০১৭ সালে চিকিৎসা নিতে আসা এক নারী রোগীর সঙ্গে শরীফ ফাত্তাহ জোরপূর্বক শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের চেষ্টা করলে সেই নারী পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন। এই অভিযোগের ভিত্তিতে শরীফ ফাত্তাহ গ্রেপ্তার হন। পরে তার বিরুদ্ধে আরও অভিযোগ আসে। গ্রেফতারে পর শরীফ ফাত্তাহকে আদালতে হাজির করা হয়। মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত চিকিৎসা প্রদান বন্ধ রাখার শর্তে তখন তিনি জামিনে ছাড়া পেয়েছিলেন।

অস্ট্রেলিয়ায় অবস্থানের কোনো বৈধ ভিসা বর্তমানে শরীফ ফাত্তাহর নেই। এ জন্য তাকে ভিলাউড বন্দিশালার হেফাজতে রাখা হয়েছে।

আজকের পত্রিকা/কেএইচআর/এমএআরএস