নির্যাতিতা মেয়ে ও তার স্বজনরা। ছবি : সংগৃহীত

দিনাজপুরের পার্বতীপুর পৌরসভার মেয়র এ.জেড.এম মেনহাজুল হক এর বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতন মামলা হয়। সেই মামলায় এখনো পলাতক রয়েছেন।

তবে মামলা দায়েরে ৪দিন পার হলেও পুলিশ তাকে গ্রেফতার করতে পারেনি।

পার্বতীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোখলেছুর রহমান বলছেন, মামলা দায়েরের পরই আসামিকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান চালানো হয়। কিন্তু পলাতক থাকায় তাকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি। গ্রেফতারের ব্যাপারে সাঁড়াশি অভিযান অব্যাহত আছে।

অভিযোগকারী নারী থানা অভিযোগে বলেছেন, পৌরসভায় মাস্টার রোলে চাকরি দেয়ার কথা বলে মেয়র মেনহাজুল হক তাকে ২৯ জুন সন্ধ্যায় ফোনে নিজ বাসায় ডেকে নেয় এবং ধর্ষণ করে।

অভিযোগে আরও বলা হয়েছে, তাকে হত্যা করতে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় চাকু দিয়ে ক্ষতবিক্ষত করা হয়েছে। ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে চিৎকার করেন তিনি। পরে লোকজন তাকে জখম অবস্থায় পার্বতীপুর উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে।

এ অভিযোগে মঙ্গলবার রাতে থানায় মামলা হয়েছে বলে পুলিশ নিশ্চিত করেছে। এরই মধ্যে ওই নারীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য দিনাজপুর আবদুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পার্বতীপুর থানার ওসি (তদন্ত) শেখ মোহাম্মদ জুবায়ের মক্কি জানান, ভুক্তভোগীকে বুধবার স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য দিনাজপুর আবদুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

এদিকে মেয়র মেনহাজুল হক বলেন, সামনে নির্বাচন। মামলাটি স্বার্থান্বেষী মহলের দ্বারা করানো হয়েছে।

এদিকে পার্বতীপুর পৌর মেয়র ও থানা বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি মেনহাজুল হকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার বিকালে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শহরের নতুনবাজার দৈনিক মানববার্তা কার্যালয়ে মেয়রের পক্ষে সংবাদ সম্মেলনে মেয়রের লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন প্যানেল মেয়র মঞ্জুরুল আজিজ পলাশ।

আজকের পত্রিকা/এমএআরএস