রমজানে ইফতারিতে খাওয়ার উপাদানগুলোর মধ্যে খেজুর অন্যতম। এটি স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। খেজুর খাওয়া যেমন স্বাস্থ্যের জন্য ভালো আবার তেমনই চুল ও ত্বকের সৌন্দর্য বজায় রাখতেও খেজুরের জুড়ি নেই। কারণ খেজুরের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ এন্টি অক্সিডেন্ট ছাড়াও রয়েছে ভিটামিন এ, বি ম্যাগনেশিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, সালফার, প্রোটিন, ফাইবার এবং আয়র। এবার জেনে নিন খেজুর খেলে যে ১০টি উপকার পাবেন।

কোষ্ঠকাঠিন্য রোধ করে: তুলনামূলকভাবে যেসব খেজুর একটু শক্ত সেই খেজুর সারারাত পানিতে ভিজিয়ে সকালে খালি পেটে সেই পানি পান করলে কোষ্ঠকাঠিন্য অনেকাংশে দূর হয়।

চুলের গোড়া মজবুত করে: খেজুরের মধ্যে যে তেল থাকে তা পুষ্টিতে পরিপূর্ণ। অনেক সময়ে চুলের উজ্জ্বলতা হারিয়ে যায়। চুলের মধ্যে একটা রুক্ষ ও শুষ্ক ভাব দেখা যায়। এছাড়া চুল পড়ার সমস্যার সমাধান করে খেজুর।

ত্বককে টানটান করে: অনেক সময়ে বয়স বাড়ার ফলে মুখের চামড়া কুঁচকে যায়। খেজুরে ভিটামিন বি রয়েছে। যা ত্বকের পক্ষে অত্যন্ত উপকারি। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে ৪-৫টি খেজুর নিয়ম করে খান। দেখবেন আস্তে আস্তে দাগ মিলিয়ে যাবে।

বদহজম দূরে রাখে: আমাদের মুখের লালাকে ভালোভাবে খাবারের সঙ্গে মিশতে সাহায্য করে খেজুর। ফলে আমাদের বদহজম অনেকাংশে দূর হয়।

মস্তিষ্ক সচল রাখে: খেজুরের সব থেকে বড় গুণ হল খেজুর মস্তিষ্ককে প্রাণবন্ত রাখে। আমাদের ক্লান্ত শরীরে যথেষ্ট পরিমাণ শক্তির জোগান দিতে সক্ষম এই খেজুর।

হার্টের সমস্যা দূর করে: বিশেষ করে যাদের হার্টের সমস্যা আছে তাদের জন্য খেজুর খুবই উপকারী। কেননা খেজুর দুর্বল হার্টকে মজবুত করতে সক্ষম করে। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে খেজুর ব্লেন্ড করা জুস খেলে হার্টের সমস্যায় কিছু দিনের মধ্যে উপকার পাবেন। হৃদরোগ কমাতেও খেজুর বেশ কার্যকরী ভূমিকা পালন করে থাকে।

ক্যান্সার প্রতিরোধ করে: ক্যান্সারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে খেজুর। এছাড়াও মুখগহ্বরের ক্যান্সার রোধেও এই ফল বেশ কার্যকরী।

খুসখুসে কাশি দূর করে: সাধারণত যাদের খুসখুসে কাশি হয় তারা ২০-২৫ গ্রাম খেজুর, ২ কাপ গরম জলে সারা রাত ভিজিয়ে রাখুন। সকালে ঘুম থেকে উঠে ওই খেজুর চটকে নিয়ে সরবতের মতো করে খেলে খুসখুসে কাশি থেকে ১৫ দিনের মধ্যে উপকার পাবেন।

গ্লুকোজের অভাব দূর করে: শরীরে গ্লুকোজের অভাব খেজুর দ্রুত পূরণ করতে সাহায্য করে।

  • 30
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    30
    Shares