রমযান মাসে তারাবীর নামায আল্লাহর উপহার। ছবি: সংগৃহীত

নামাজ ও রোজা ঈমানের পরে ইসলামের প্রধান দুটি বিধান, যা সবার জন্য প্রযোজ্য। রোজার সঙ্গে নামাজের সম্পর্ক সুনিবিড়। প্রিয় নবীজি (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘নিশ্চয় আল্লাহ তাআলা তোমাদের প্রতি রোজা ফরজ করেছেন আর আমি তোমাদের জন্য তারাবীহর নামাজকে সুন্নত করেছি; যে ব্যক্তি ইমানের সঙ্গে সওয়াবের আশায় রমজানের দিনে রোজা পালন করবে ও রাতে তারাবীহর নামাজ আদায় করবে, সে গুনাহ থেকে এরূপ পবিত্র হবে, যেরূপ নবজাতক শিশু মাতৃগর্ভ থেকে নিষ্পাপ অবস্থায় ভূমিষ্ঠ হয়।’ (নাসায়ি, খণ্ড: ১, পৃষ্ঠা: ২৩৯)।

ফরজ ইবাদত পালন করতে হয় সুন্নত পদ্ধতিতে। রমজানের চাঁদ দেখা গেলে রোজার আগেই তারাবিহর সুন্নত নামাজ আমল করতে হয়। হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ (স.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি ঈমানের সহিত সওয়াবের উদ্দেশ্যে রমাদান মাসে রাত্রি জাগরণ করে তারাবিহর নামাজ পড়বে, তার অতীতের সমস্ত গুনাহ মাফ করে দেওয়া হবে।’ (বুখারি, খণ্ড: ১, হাদিস: ৩৬)।

বিশ রাকাত তারাবিহর নামাজ সুন্নতে মুয়াক্কাদাহ। পুরুষদের জন্য তারাবীহর নামাজ মসজিদে জামাতে আদায় করা সুন্নত। তারাবিহর নামাজে পূর্ণ কোরআন শরিফ একবার পাঠ করা সুন্নত। একে খতমে তারাবীহ বলে। পূর্ণ কোরআন না পড়ে বিভিন্ন সুরা দিয়ে তারাবিহর নামাজ আদায় করাকে সুরা তারাবীহ বলা হয়।

সুরা তারাবীহ পড়লেও বিশ রাকাত পড়া সুন্নত। একা পড়লেও বিশ রাকাতই পড়া সুন্নত। নারীদের জন্যও বিশ রাকাত তারাবীহ সুন্নত। এশার নামাজের পর থেকে ফজরের নামাজের পূর্ব পর্যন্ত তারাবীহর নামাজ পড়া যায়। শিশুরাও তারাবীহর নামাজ পড়তে পারে।

আজকের পত্রিকা/মির/সিফাত