১২ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার যুক্তরাজ্যে তৃতীয় সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।প্রতি ৫ বছর পর পর সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও গত পাঁচ বছরের কম সময়ে দেশটিতে এটি তৃতীয় সাধারণ নির্বাচন। ১০০ বছরের ইতিহাসে ডিসেম্বরে সাধারণ নির্বাচন আয়োজনের দ্বিতীয় ঘটনা।

সরকার বনাম পার্লামেন্টের মুখোমুখি অবস্থানে দীর্ঘ প্রায় সাড়ে তিন বছরে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে যুক্তরাজ্যের বিচ্ছেদ কার্যকর করা যায়নি। সর্বশেষ ৩১ অক্টোবর আলোচিত এই বিচ্ছেদ কার্যকর হওয়ার কথা ছিল। শেষ মুহূর্তে তা পিছিয়ে যায়। নতুন দিনক্ষণ নির্ধারিত হয়েছে ২০২০ সালের ৩১ জানুয়ারি। ব্রেক্সিট নিয়ে এমন অচলাবস্থার অবসানে অবশেষে আগাম সাধারণ নির্বাচনের পথ বেছে নিয়েছে যুক্তরাজ্য।

সকাল ৭টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত যুক্তরাজ্যজুড়ে ভোট গ্রহণ চলবে। নির্বাচনের দিন রাতে ও পরবর্তী দিনে ঘোষণা হতে থাকবে ফলাফল। বিজয়ী দলের প্রতিনিধিরা বাকিংহাম প্রাসাদে গিয়ে রানির কাছে নতুন সরকার গঠনে অনুমতি চাইবেন। দলের নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী ১০ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিটের বাসভবনে প্রবেশের আগেই নতুন সরকারের পরিকল্পনা জানাবেন। পার্লামেন্টের ৬৫০ আসনের বিপরীতে লড়াই করবেন প্রার্থীরা।

ইইউ থেকে যুক্তরাজ্যের বিচ্ছেদ কার্যকরে অবিচল প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এই নির্বাচনের মাধ্যমে সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় ফিরতে চান। অন্যদিকে প্রধান বিরোধী দল লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন দেশকে ঢেলে সাজাতে এই মধ্যবর্তী নির্বাচন প্রজন্মের একমাত্র সুযোগ বলে মনে করছেন। নির্বাচনে দুই দলের হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হওয়ার আভাস পাওয়া গেছে।

আজকের পত্রিকা/সিফাত