পুলিশ। প্রতীকী ছবি

চোরাচালানির কাছ থেকে ৮পিস সোনার বার ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগে তিন পুলিশ সদস্যকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে শার্শা থানায় ছিনতাইয়ের অভিযোগে মামলা করা হয়েছে।

আটককৃতরা হলেন, বাগআঁচড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এএসআই তবিবর রহমান (৩২), রঞ্জন কুমার মৈত্র (৩৭) এবং পুলিশ কনস্টেবেল (গাড়িচালক) তুষার সরকার (২৮)।

২১ মে মঙ্গলবার এদেরকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

শার্শা থানার এসআই আবুল হাসানের দায়ের করা এজাহারে উল্লেখ করেছেন, গত ১৯ মে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে সামটা জামতলা এলাকায় ডিএসটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পাশে রেজাউল মাস্টারের বাড়ির পাশে পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাই সংঘটিত হয়।

এ সময় আসামিরা শার্শার মহিষাকুড়া গ্রামের আপদিনের ছেলে আক্তারুল (২৩) এবং আব্দুল মালেকের ছেলে সাজেদুরকে আটক করে। তাদের কাছ থেকে ৮পিস সোনার বার জব্দ করে তা আত্মসাৎ করে। চোরাচালানিকে ছেড়ে দেয় আসামিরা। পরে রাত সাড়ে ১১টার দিকে ওই তিন পুলিশ সদস্যকে শার্শা থানায় ডেকে নেয়া হয়। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে এক পর্যায়ে তারা স্বীকার করে এবং আত্মসাৎকৃত সোনার ৮টি বার ফেরত দেন।

এএসআই তবিবর রহমান তার পরিহিত প্যান্টের মধ্যে থেকে স্কসটেপ দিয়ে বিশেষ কায়দায় মোড়ানো সোনার বারগুলো বের করে দেন। ওই বার গুলোর ওজন ৮৫ ভরি ১১ আনা ১ রতি ২ পয়েন্ট। যার বর্তমান মূল্য ৪০ লাখ ২৭ হাজার ৮০৭ টাকা।

শার্শা থানার এসআই আবুল হাসান জানিয়েছেন, ২১ মে মঙ্গলবার সকালে তিন পুলিশ সদস্যকে আদালতে পাঠানো হলে আদালত তাদের জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

এ দিকে বাগআঁচড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এসআই আব্দুর রহিম হাওলাদার জানিয়েছেন, ওই দুই চোরাচালানির বিরুদ্ধেও শার্শা থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করা হয়েছে।

এইচ আর তুহিন/যশোর