নারীদের স্তন কেটে বিক্রি করতেন কেনিয়ার বোনিফেস কিমনিয়ানো। ছবি: সংগৃহীত

নারীদের স্তন কেটে বিক্রি করতেন কেনিয়ার বোনিফেস কিমনিয়ানো ।দুই বছর ধরেই এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত তিনি। আর স্তনের দাম নির্ভর করতো সেগুলো কত বড় তার উপরে। তবে এই আতঙ্কিত কাজ থেকে এখন বেড়িয়ে এসেছেন তিনি।

সংবাদমাধ্যম কেটিএন-কে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে কিমনিয়ানো তার সকল কর্মকাণ্ড তুলে ধরেন। মূলত যৌনকর্মীদের সঙ্গেই সম্পর্ক গড়ে তুলতেন তিনি। সম্পর্ক তৈরি করার পর ওই নারীদের স্তন কেটে ফেলতেন । কিমনিয়ানো আরও জানান, আমরা শহরের বিভিন্ন স্থানে ঘুরে নারীদের তুলে আনতাম এবং অর্থের বিনিময়ে তাদের স্তন কেটে নিতাম।

কিমানিয়ানো জানান, তারা বেশিরভাগ অভিযান চালাতেন কোয়েনাঞ্জ স্ট্রিট এবং শহরের কেন্দ্রস্থলে, যেখানে যৌন কর্মীরা অবাধে চলাফেরা করতেন। ‘ফ্লেক্সর’ নামের রাসায়নিক ব্যবহার করে নারীদের ঘুম পাড়িয়ে দিতেন তিনি। এরপর তাদের স্তন কেটে ফেলতেন।

কিমনিয়ানো বলেন, ‘কিছু লোক ছিল আমাদের নির্দেশদাতা। তাদের মতে, এটি একটি খুবই লাভজনক ব্যবসা। আমাদের কাজ ছিল কেবল স্তন সংগ্রহ করা এবং বডি ব্রোকারদের কাছে সেগুলো পৌঁছে দেওয়া। স্তনগুলো আকার অনুযায়ী স্থানীয় মুদ্রায় ১ লাখ থেকে ১ লাখ ২০ হাজারে বিক্রি করা হতো। তিনি আরও বলেন, যত বড় হতো স্তনগুলো, তত ভালো হতো আমাদের জন্য। আকারের উপর নির্ভর করে আমাদেরকে মূ্ল্য প্রদান করা হতো।

আজকের পত্রিকা/এসএমএস/সিফাত