ট্যাব এন্ড স্মার্টফোন এক্সপো। ছবি: সংগৃহীত

রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) চলছে তিনদিনব্যাপী স্মার্টফোন ও ট্যাবমেলা। আর এ ট্যাব মেলায় দর্শনার্থীদের কেনাকাটার সুবিধার জন্য রয়েছে ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে মূল্য পরিশোধের সুবিধা। ব্র্যান্ড ভেদে আছে নানান ধরনের অফারও। মিলছে কিস্তিতে ফোন।

৫ জুলাই শুক্রবার মেলা প্রাঙ্গণে গিয়ে কার্ডের মাধ্যমে বিভিন্ন পণ্যের মূল্য পরিশোধ করতে দেখা যায় ক্রেতা সাধারণ ও দর্শনার্থীদের। দর্শনার্থীদের আকৃষ্ট করতে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মোবাইল ফোন ও গ্যাজেট কোম্পানিগুলো রেখেছে কার্ড পেমেন্টের সুবিধা।

স্যামসাং, অপ্পো, ভিভো, হুয়াওয়ে, নোকিয়া, শাওমি, মটোরোলাসহ প্রায় সব ব্র্যান্ডের প্যাভিলিয়নে আছে কার্ড পেমেন্ট অপশন। এছাড়াও মোবাইল ব্যাংকিং প্ল্যাটফর্ম নগদের মাধ্যমেও মূল্য পরিশোধের সুযোগ আছে কোনো কোনোটিতে।

এদিকে, কার্ড পেমেন্ট নিয়ে অফার দিয়েছে কিছু ব্র্যান্ড। গ্রাহকদের সর্বোচ্চ ছয় মাসের বিনা সুদের কিস্তিতে হ্যান্ডসেট কেনার সুযোগ রেখেছে অপ্পো।

ব্র্যান্ডটির বাংলাদেশের বিপণন ও জনসংযোগ ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ ইফতেখার বলেন, ব্র্যাক ব্যাংক এবং সিটি ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারকারীরা কার্ড দিয়ে পেমেন্ট করলে সর্বোচ্চ ছয় মাস পর্যন্ত মাসিক কিস্তিতে হ্যান্ডসেট কিনতে পারবেন। আর এজন্য কোনো ইন্টারেস্ট দিতে হবে না।

অন্যদিকে কার্ডে পেমেন্ট করলে দুই শতাংশ সার্ভিস চার্জ মওকুফ করছে ভিভো। প্রতিষ্ঠানটির এক বিক্রয় প্রতিনিধি বলেন, ক্রেডিট কার্ডে পেমেন্ট করলে অনেক সময় দুই শতাংশ সার্ভিস চার্জ নেয় সংশ্লিষ্ট ব্যাংক। আমাদের এখানে গ্রাহকের এ চার্জটি আমরা দিয়ে দেবো।

মেলায় অংশ নেওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর কর্মকর্তা ও গ্রাহকদের ভাষ্য অনুযায়ী, প্রিমিয়াম এবং ফ্ল্যাগশিপ ক্যাটাগরির মোবাইল ফোনের ক্রেতারা সব থেকে বেশি উপকৃত হচ্ছেন কার্ড পেমেন্ট সুবিধায়। দামি হ্যান্ডসেটগুলো কিনতে মোটা অঙ্কের ক্যাশ টাকা নিয়ে আসতে হচ্ছে না মেলায়।

উত্তরা থেকে মেলায় আসা দর্শনার্থী শাহ মমিন বলেন, একটু দামি মোবাইল কেনার বাজেট আছে এবার। অন্যান্য সময় প্রায় লাখ খানেক টাকা এমন বিশাল লোক সমাগমের জায়গায় নিয়ে আসা চিন্তায় থাকতে হতো। কিন্তু ডিজিটাল মাধ্যম তথা কার্ড বা মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে এতো বড় অঙ্কের মূল্যও পরিশোধ করা এখন সহজ ব্যাপার। দেশ ডিজিটাল হওয়ার পাশাপশি পেমেন্ট সিস্টেমও ডিজিটাল হচ্ছে। এটা আমাদের জন্য খুব ভালো একটা বিষয়।

মনির হোসেন নামে এক শিক্ষার্থী কার্ড পেমেন্টে কিস্তি সুবিধায় উপকৃত হওয়ার কথা জানান। তিনি বলেন, আমি স্টুডেন্ট। একটা মোবাইল কিনবো। কিন্তু দাম প্রায় ২২ হাজার টাকা। এতো টাকা তো একসঙ্গে হাতে নেই। তাই বাবাকে রাজি করিয়েছি এবং তার ক্রেডিট কার্ড দিয়ে কিস্তিতে হ্যান্ডসেট কিনলাম। প্রতি মাসের টিউশনি থেকে সেই টাকা পরিশোধ করে দেবো।

আজকের পত্রিকা/এমইউ