টরেন্টো চলচ্চিত্র উৎসবে ওয়ার্ল্ড প্রিমিয়ার। ৬৩তম বিএফআই লন্ডন চলচ্চিত্র উৎসব দিয়ে ইউকে প্রিমিয়ার। আর ফ্রান্সের সা জ দ্যু লুস চলচ্চিত্র উৎসব দিয়ে ফরাসী সৌরভ পেলো রুবাইয়াত হোসেনের মেড ইন বাংলাদেশ।

ষষ্ঠবারের মতো ফ্রান্সে আয়োজিত এ উৎসবে ওম্যানস ইন্টারপ্রিটেশন অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন চলচ্চিত্রটির প্রধান অভিনেত্রী রিকিতা নন্দিনী শিমু। উৎসবে মোট আটটি বিভাগে পুরস্কার দেওয়া হয়। এছাড়া বিএফআই লন্ডন ফিল্ম ফেস্টিভালে পরিচালকের সাথে মেড ইন বাংলাদেশ ছবির প্রতিনিধিত্ব করেছেন শিমু। সেখানে ৭ ও ৮ অক্টোবর
সিনেমা প্রদর্শনের পর দর্শকদের সঙ্গে বিভিন্ন প্রশ্নোত্তর পর্বে অংশ নিয়েছেন মিতা চৌধুরী ও শিমু।

প্রথম ছবি মেহেরজান এবং দ্বিতীয় ছবি আন্ডার কনস্ট্রাকশন-এর পর এটি রুবাইয়াত হোসেনের তৃতীয় ছবি। বাংলাদেশে নারীর ক্ষমতায়নে ও আত্মনির্ভরশীলতা অর্জনে পোশাকশিল্পের যে ভূমিকা আছে তার আলোকে দৃঢ়চেতা নারী পোশাকশ্রমিকদের সংগ্রাম ও সাফল্যের গল্প বলা হয়েছে মেড ইন বাংলাদেশ ছবিতে।

ছবিতে আরো অভিনয় করেছেন নভেরা হোসেন, দীপান্বিতা মার্টিন, পারভীন পারু, মায়াবি মায়া, মোস্তফা মনোয়ার, শতাব্দী ওয়াদুদ, জয়রাজ, মোমেনা চৌধুরী, ওয়াহিদা মল্লিক জলি ও সামিনা লুৎফা প্রমুখ। দুটি অতিথি চরিত্রে অভিনয় করেছেন মিতা চৌধুরী ও ভারতের শাহানা গোস্বামী।

ছবিটি প্রযোজনা করেছে ফ্রান্স, ডেনমার্ক, পর্তুগাল ও বাংলাদেশের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান। ২০১৬ থেকে ছবিটির কাজ শুরু করেন রুবাইয়াত হোসেন। লোকার্নো চলচ্চিত্র উৎসবের ‘ওপেন ডোরস’-এ অংশ নিয়ে চিত্রনাট্যের জন্য জিতে নেন আর্টে ইন্টারন্যাশনাল পুরস্কার। এছাড়া ছবিটি নির্মাণের জন্য পেয়েছেন ফ্রান্স সরকারের সিএনসি ফান্ড, নরওয়ে সরকারের সোরফন্ড প্লাস, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের ইউরিমাজ ফান্ড, ডেনমার্কের ডেনিশ ফিল্ম ইনস্টিটিউট ফান্ড ও টোরিনো ফিল্ম ল্যাবের
অডিয়েন্স ডিজাইন ফান্ড। ছবিটির প্রযোজক ফ্রঁসোয়া দ্য’আক্তেমেয়ার (ফ্রান্স) ও আশিক মোস্তফা (বাংলাদেশ) এবং যৌথ প্রযোজক পিটার হিল্ডাল (ডেনমার্ক), পেদ্রো বোর্হেস (পর্তুগাল) ও আদনান ইমতিয়াজ আহমেদ (বাংলাদেশ)। বাংলাদেশের খনা টকিজ ও ফ্রান্সের লা ফিল্মস দ্য এপ্রেস-মিডির ব্যানারে নির্মিত ‘মেড ইন বাংলাদেশ’এর পরিবেশনা ও আন্তর্জাতিক বিক্রয় প্রতিনিধি ফ্রান্সের পিরামিড ফিল্মস।

আজকের পত্রিকা/এসএমএস