বডি লোশন মুখে মাখলে ব্রণ, ফসকুড়ির সমস্যা দেখা দিতে পারে। ছবি: সংগৃহীত

মুখ শুষ্ক এবং রুক্ষ হলে আমরা মুখের বিভিন্ন ক্রিম, স্নো কিংবা কেউ কেউ বডি লোশন ব্যবহার করে। শীতকালে আমাদের মুখের ত্বক সাধারণত খুব রুক্ষ এবং ত্বককে ময়শ্চারাইজ করার প্রয়োজন পড়ে। আমাদের অনেকেই শরীরের ত্বকের জন্য কেনা বডি লোশন মুখে মাখেন। কিন্তু আপনি জানেন কি এতে আদৌ কোনো উপকার হচ্ছে কিনা?

চর্ম বিশেষজ্ঞরা বলেন, বাজার থেকে কেনা বডি লোশন মুখে মাখলে উপকারের থেকে ক্ষতির আশঙ্কায় বেশি থাকে। শুধু বডি লোশনই যে ত্বকের ক্ষতি করছে তা কিন্তু নয়, বরং ত্বকের যত্নে ও সুরক্ষায় ব্যবহৃত অন্যান্য পণ্যগুলোর মধ্যেও রয়েছে রাসায়নিক ক্ষতিকারক উপাদান যা আমাদের ত্বকের ক্ষতি করে। চলুন জেনে নিই, সেই সব পণ্য সম্পর্কে।

বডি লোশন

শীতকালে লোশনের ব্যবহার হয় সবচেয়ে বেশি। কারণ এ সময় ত্বক শুষ্ক, রুক্ষ হওয়া কিংবা ফেটে যাওয়ার মতো সমস্যা বেশি হয়। তাই ত্বককে ময়শ্চারাইজ করতে লোশন ব্যবহার করতে হয়। অনেকে হাতে, পায়ে মাখার সঙ্গে সঙ্গে মুখের ত্বকেও মেখে নেন বডি লোশন! কিন্তু ডার্মেটোলজিস্ট বা ত্বক-বিশেষজ্ঞদের মতে, এতে ত্বকের উপকারের তুলনায় ক্ষতির আশঙ্কাই বেশি! তাদের মতে, বডি লোশন সাধারণত মুখে মাখার লোশনের তুলনায় অনেক ভারী হয়। এতে ব্রণ, ফসকুড়ির সমস্যা দেখা দিতে পারে।

বেকিং সোডা

স্ক্রাবার হিসেবে এবং রূপচর্চায় অনেকে বেকিং সোডা ব্যবহার করে থাকেন। এতে ত্বকের পিএইচ ব্যালেন্স নষ্ট হয়ে যায়।

শ্যাম্পু

গোসল করার সময় চুলে শ্যাম্পু করতে গেলে তা মুখে লেগে যায়। এখন থেকে খেয়াল রাখবেন শ্যাম্পু যাতে মুখে না লাগে। কারণ মুখের ত্বকের জন্য শ্যাম্পু ক্ষতিকর। এতে ত্বক শুষ্ক এবং রুক্ষ হয়ে যায় এবং র‍্যাশ দেখা দিতে পারে।

হেয়ার কালার প্রোডাক্ট

অনেকে চুলে রঙ করে থাকেন। কিন্তু এই রঙে বিদ্যমান ক্ষতিকর রাসায়নিক উপাদান মুখে লেগে যাওয়া ত্বকের ক্ষতি করে থাকে। তাই হেয়ার কালার করার সময় সতর্ক থাকতে হবে।

মেয়োনিজ

চুলের যত্ন নিতে মেয়োনিজ খুব কার্যকরী। চুলের যত্নে অনেকেই মেয়োনিজ ব্যবহার করে থাকেন। কিন্তু মেয়োনিজে বিদ্যমান অ্যাসিড মুখের ত্বকের জন্য ক্ষতিকর প্রমাণিত হতে পারে।

আজকের পত্রিকা/কেএইচআর/এমএইচএস /জেবি