সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন ওবায়দুল কাদের।

‘মুক্তিযুদ্ধ ও গণতন্ত্রকে বাঁচতে হলে আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে’ এমন মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, বাংলাদেশকে বাঁচতে হলে শেখ হাসিনাকে বাঁচতে হবে। ঐতিহ্যের সাথে প্রযুক্তির সমন্বয় ঘটিয়ে ২০২১ সালে উন্নয়নশীল দেশের মডেলে তৈরি করতে আওয়ামী লীগকে নতুন করে গড়বো।

বৃহস্পতিবার (৫ ডিসেম্বর) বেলা ১টার দিকে সম্মেলনের উদ্বোধনী বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আমি শ্রদ্ধা জানাই আমাদের ইতিহাসের মহানায়ক বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা ও স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অমর স্মৃতির প্রতি। বাংলার স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধসহ বিভিন্ন পর্যায়ে আত্মাহুতি দিয়েছেন তারের স্মৃতির প্রতি।

এর আগে বেলা ১২টার দিকে ওবায়দুল কাদেরসহ কেন্দ্রীয় নেতারা ঢাকা থেকে বিমানযোগে সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেন।

সম্মেলন ঘিরে সকাল থেকেই নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে আলিয়া মাদরাসা মাঠে জড়ো হতে শুরু করেছেন। বর্ণিল প্ল্যাকার্ড ফেস্টুন নিয়ে স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত করে তুলেন সম্মেলনস্থল।

প্রথম পর্বে জাতীয় সংগীতের সাথে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে সম্মেলন উদ্বোধন করেন কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দ। সম্মেলনে সরব উপস্থিতি দেখা যাচ্ছে মহিলা আওয়ামী লীগের নেত্রীদেরও।

সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত আছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, আব্দুর রহমান, প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, কেন্দ্রীয় সদস্য সুজিত রায় নন্দী, অধ্যাপক মো. রফিকুর রহমান প্রমুখ।

এছাড়াও স্থানীয় নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত আছেন সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদসহ জেলা ও মহানগরের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা।