জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্যের অপসারণ দাবিতে চলমান আন্দোলন প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জানিয়েছেন আন্দোলনকারীরা যদি উপাচার্যের দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণ করতে না পারেন, তবে মিথ্যা অভিযোগের জন্য তাদের শাস্তি হবে।

৭ নভেম্বর বৃহস্পতিবার নিজ কার্যালয়ে সুস্থ, অসচ্ছল ও দুর্ঘটনায় আহত সাংবাদিক এবং নিহত সাংবাদিক পরিবারের সদস্যদের অনুকূলে আর্থিক অনুদানের চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় তিনি জানান, কয়েকটা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভিসির বিরুদ্ধে আন্দোলন চলছে। ক্লাস বর্জন, ভাঙচুর, অবরোধ চলছে।অপরাধী যারাই হোক না কেন আমি কিন্তু সব অপরাধীর বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেই। হঠাৎ কিছু বিশ্ববিদ্যালয় কিছু হলেই ভিসির বিরুদ্ধে আন্দোলন। আর ভিসিকে দুর্নীতিবাজ বলছে। যারা দুর্নীতির অভিযোগ আনছেন তাদের কিন্তু দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণ করতে হবে। তাদের তথ্য দিতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী এ সময় আরও বলেন, ‘যদি দুর্নীতির বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট তথ্য দিতে না পারেন। সময় নষ্ট করবেন, ক্লাস চলতে দেবেন না, ভিসির বাড়িতে, অফিসে আক্রমণ, ভাঙচুর করবেন, দিনের পর দিন ক্লাস বন্ধ থাকবে এটা তো হয় না। প্রমাণ করতে হবে। যদি কেউ প্রমাণ করতে ব্যর্থ হন তাহলে দুর্নীতি করলে যে সাজা হতো তাকে কিন্তু সেই সাজা পেতে হবে। এটি কিন্তু আইনেও আছে মিথ্যা অভিযোগ করলে আইন তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে। আমরা কিন্তু সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব। যারা কথা বলছে, বক্তৃতা করছে, আন্দোলন করেছে সব রেকর্ড থাকবে। তারা যদি প্রমাণ করতে না পারে, মিথ্যা অভিযোগের জন্য তার শাস্তি হবে। এভাবে দিনের পর দিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে, সেটা কিন্তু আমরা বরদাসত করবো না।’

আজকের পত্রিকা/সিফাত