বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি। ছবি:সংগৃহীত

বিশ্বকাপ চলাকালীন সময় থেকেই বারবার ঘুরে ফিরে আসছিল মাশরাফির অবসরের বিষয়টি। অনেকের ধারণা ছিল হয়তো বিশ্বকাপের শেষ ম্যাচেই মাশরাফি বলে দিবেন আর ক্রিকেট নয়, এবার থামার পালা। কিন্তু সেটা হয়নি। মাশরাফি অবসর ঘোষণা করেননি। বরং বলেছিলেন তিনি খেলা চালিয়ে যেতে চান যতদিন পারেন। আর বিশ্বকাপ চলাকালে লন্ডনে বসেই বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন ঘোষণা দিয়েছিলেন দেশের মাটিতে স্মরণীয় আয়োজনে বিদায় দেওয়া হবে মাশরাফি বিন মুর্ত্তজাকে। আইসিসি প্রকাশিত এফটিপি (ফিউচার ট্যুর প্ল্যান) অনুযায়ী আগামী বছরের (২০২০) ডিসেম্বরে সফরকারী শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দেশের মাটিতে পরবর্তী ওয়ানডে সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। অর্থাৎ প্রায় দেড় বছরের অপেক্ষা।

সেক্ষেত্রে বিকল্প ভাবনা ভেবে রেখেছিল বাংলাদেশ ক্রিকেটে সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক এই সংস্থাটি। অধিনায়কের বিদায় যেন প্রলম্বিত না হয় সেজন্য আগামী মাসে বাংলাদেশ, জিম্বাবুয়ে ও আফগানিস্তানকে নিয়ে ঘরের মাঠে অনুষ্ঠিত ত্রিদেশীয় সিরিজেই আনুষ্ঠানিকতা সারতে চেয়েছিল বিসিবি। কিন্তু গেল মাসের শেষদিকে জিম্বাবুয়ের ওপর আইসিসির নিষেধাজ্ঞার খড়গ নেমে এলে বিসিবির সেই পরিকল্পনা হোঁচট খায়। উদ্ভুত পরিস্থিতিতে তিন জাতির টুর্নামেন্টে অংশ নিতে বিসিবির কাছে সময় চায় জিম্বাবুইয়ান ক্রিকেট বোর্ড। কিন্তু বোর্ডটির পক্ষ থেকে এখনো চূড়ান্ত কিছুই জানানো হয়নি। ফলে টুর্নামেন্টটির সফল বাস্তবায়নে এই মুহুর্তে তাদের দিকেই তাকিয়ে বিসিবি।

আজকের পত্রিকা/এসএমএস