গাজীপুর মেট্রোপলিটন কোনাবাড়ী মার্কেন্টাইল ব্যাংক থেকে হাফিজা বেগমের ৭৪ হাজার টাকা একদল সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্র অভিনব কৌশলে নিয়ে গেছে।

ভুক্তভোগী হাফিজা বেগম জানান, বুধবার (২৬ জুন) বেলা ১২টার দিকে আমার স্বামীর সাথে মার্কেন্টাইল ব্যাংকে ডিপিএস এর টাকা উত্তোলন করি।

আমি প্রতি মাসে ১৫শত টাকা সঞ্চয় রাখি পাঁচ বছরের জন্য। ৫বছর মেয়াদ শেষ হলে, আমি পাব এক লক্ষ টাকা কিন্তু মেয়াদ শেষ হওয়ার ৮মাস আগেই তুলি। তাই আমি টাকা পাই ৮৬১১২টাকা।

টাকা তুলে টেবিলের উপরে একটি কাপড়ের শপিং ব্যাগে রেখে বাচ্চা কোলে নিয়ে বসে থাকি।

আর আমার হাজব্যান্ড অন্য টাকা তোলার জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে আছে।তিনি টাকা তুলে আমার কাছে আসলে আমাকে বলে ব্যাগ কাটা কেন। ব্যাগের ভিতরে হাত দিয়ে দেখি টাকা আছে ১২১১২ টাকা, বাকি টাকা নেই।

ব্যাগ কাটা দেখে ব্যাংকের ভিতরে থাকা গ্রাহকদের মধ্যে হইচই শুরু হয়। ব্যাংকের ভিতরে থাকা আরেক গ্রাহক সাগর হোসেন জানান,আমরা ভিডিও ফুটেজে দেখতে পাই, আনুমানিক ৫০বছরের উর্ধ্বে এক ব্যক্তি তার পরনে ছিল সাদা কাপড়ের পাঞ্জাবি এবং মুখে ছিল সাদা দাড়ি। দাড়িওয়ালা সেই ব্যক্তিকে বাহির থেকে এসে হাফিজা বেগমের কাছে বসে মোবাইল টিপাটিপি করেন,আবার কিছুক্ষন ওখান থেকে উঠে বাহিরে চলে যান।

বাহির থেকে হাতে একটি অফিসিয়াল ব্যাগ নিয়ে এসে হাফিজার টাকার ব্যাগের কাছে রাখেন এর পরে হাফিজা বেগম তার ব্যাগ হাতে নেন। আবার হাফিজা বেগমকে ব্যাগ টেবিলের উপরে রাখতে দেখা যায়।

ঠিক ছিনতাইকারী ব্যাক্তিকে আবারও হাফিজার ব্যাগের উপরে ব্যাগ রেখে ব্লেড দিয়ে দ্রুত ব্যাগ কেটে টাকা নিয়ে পালিয়ে যেতে দেখা যাচ্ছে। তার সাথে সহযোগী হিসাবে আরেক জন সাদা শার্ট পরা লোক দেখা গেছে।

মার্কেন্টাইল ব্যাংকের আরেক গ্রাহক জাহিদ হোসেন জানান, ব্যাংকের নিরাপত্তা কর্মী পর্যাপ্ত না থাকার কারণে এরকম ঘটনা ঘটেছে।

মার্কেন্টাইল ব্যাংকের কোনাবাড়ী শাখার সহকারী পরিচালক সতি সাহা জানান,আমরা আন্তরিক ভাবে দুঃখিত এরকম একটি দুর্ঘটনার জন্য। তবে আমাদের দায়িত্ব ক্যাস কাউন্টার পর্যন্ত এর পরে ভিতরে কিছু ঘটলে এর জন্য আমরা দায়ী না।

শহিদুল ইসলাম/গাজিপুর