সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন এক ভুক্তভোগী

সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ সহকারী জজ আদালতের পেশকার শফিকের বিরুদ্ধে বিবাদী পক্ষের কাছ থেকে টাকা নিয়ে মামলার নথি আদালতে উপস্থাপন না করে বার বার দিন পাল্টে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

এমন অভিযোগে বাদী মঙ্গলবার বিকেলে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন সাতক্ষীরার কালিগঞ্জের নাটোয়ারবেড় গ্রামের মৃত. মান্দার গাজীর ছেলে আব্দুল মুজিদ।

সাংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আমার পৈত্রিক সূত্রে এবং ক্রয়কৃত নাটোয়ারবেড় মৌজায় ৯ একর সম্পত্তি রয়েছে। বিগত ২০০৭ সালে শ্যামনগর উপজেলার রামজীবনপুর এলাকার মৃত. হারান চন্দ্রের পুত্র গোপীনাথ ঘোষ ভূয়া এস এ রেকর্ড দেখিয়ে ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী বাহিনীর সহযোগিতায় দখল করে নেয়।

সে সময় তাদের অস্ত্রের মুুখে জীবনের ভয়ে প্রতিবাদ করতে সাহস পায়নি। পরে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি এবং থানা পুলিশের মাধ্যমে প্রতিকার পেতে ব্যর্থ হয়ে গত ২০১৬ সালের দিকে ওই ভূয়া এস এ রেকর্ডের বিরুদ্ধে কালীগঞ্জ থানা সহকারী জজ আদালতে মামলা দায়ের করি। যার নং ৪৪/১৬।

তিনি আরও জানান, মামলাটি দিনের পর দিন পড়ে কিন্তু আদালতে আমার নথি উপস্থাপন হয় না। এভাবে প্রায় দুই বছর হয়রানি হচ্ছি। কিন্তু আজ পর্যন্ত আদালতে আমার নথি উপস্থাপন হয়নি। পেশকার শফিক আমার বিবাদীপক্ষ গোপীনাথ ঘোষের কাছ থেকে মোটা অংকের আর্থিক সুবিধা নিয়ে আমার মামলার নথি আদালতে উপস্থাপন করেন না। আমি দুর্নীতিবাজ পেশকারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা ও আদালতে মামলার নথি উপস্থাপনের দাবি জানাই।

আদালতে নথি উপস্থাপন না হওয়ার কারণ জানতে চাইলে পেশকার শফিক বলেন, সব দিন আদালতে নথি ওঠে না। তাহলে কেন দিন তারিখ দেয়া হয় এমন প্রশ্নের কোন সদুত্তর দিতে পারেননি তিনি।

বৈশাখী/সাতক্ষীরা