মরদেহ। প্রতীকী ছবি

নওগাঁর মান্দায় নাদিম হোসেন মুরাদ নামে ১৪ বছর বয়সী এক কিশোর নিখোঁজের ১ সপ্তাহ পর সন্ধান পেয়েছে তার বাবা-মা।

মুরাদ মান্দার গনেশপুর কারিগরপাড়ার মকছেদ আলী শেখের একমাত্র ছেলে। সে গত ৬ জানুয়ারি সতীহাট থেকে বাড়ি ফেরার পথে নিখোঁজ হয়ে যায়। সে সতিহাট বাসষ্ট্যান্ডের নিচে আলেপের উর্মি বস্ত্রালয়ের একজন কর্মচারী ছিলো। তার বার পেশায় একজন অটোচার্জার রিক্সা চালক। থাকতেন রাজশাহীতে। ওইদিন বাড়িতেই ছিলেন। কিন্তু ছেলে মুরাদ নিখোঁজের দিন আনুমানিক সকাল ৮ টার দিকে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায় উর্মি বস্ত্রালয় সতিহাটে।

অথচ, সারাদিন দোকানে থাকার পর রাতে বাড়িতে না ফেরায় ওইদিন রাতেই নিকট আত্মীয়সহ বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করে না পাওয়ায় গত ১০ ই জানুয়ারি মান্দা থানায় জিডি একটি জিডি করেন । জিডি নং ৩৯৩। এরপর রাজশাহী গ্রামীনফোন কাষ্টমার কেয়ার থেকে গত ১ মাসের কল সামারি সংগ্রহ করে জিডির কপিসহ আজ সকালে স্থানীয় এক সংবাদকর্মীর কাছে আসেন ছেলেটি নিখোঁজের একটি সংবাদ মাধ্যমে দিতে ।

এমতাবস্থায় তার একজন নিকট আত্মীয় তাকে ঢাকার উত্তরা ১১ নং সেক্টর থেকে মোবাইল ফোনে জানান যে, ছেলেটিকে খুঁজে পাওয়া গেছে। উল্লেখ্য, ছেলেটি পাঁচ ফুট লম্বা, গায়ের রং- ফর্সা, মুখমন্ডল- গোলাকার, নিখোঁজের দিন পড়নে ছিলো জিন্সের ফুলপ্যান্ট এবং কমলা রং এর জ্যাকেট। সে নওগাঁর আ লিক ভাষায় কথা বলতে পারে।

-মাহবুবুজ্জামান সেতু