ছবি: প্রতীকী। সংগৃহীত

চেন্নাই আর কোয়মবত্তূরে ‘ব্রহ্মাণ্ডমাই’ নামে একটি ‘সারাভানা স্টোর’ এবং দু’টি প্রোমোটার সংস্থা ‘লোটাস গ্রুপ’ ও ‘জিস্কোয়্যার’-এর অফিসে ৭ দিনেরও বেশি সময় ধরে তল্লাশি চালিয়ে কবর খুঁড়ে ৪৩৩ কোটি টাকার সম্পদের হদিশ পেয়েছেন আয়কর কর্মকর্তারা।

আয়কর দফতরের চোখকে ফাঁকি দিতে মাটির নীচে পুঁতে রাখা হয়েছিল রাশি রাশি সোনা, হিরা। বড় কয়েকটি কবরে রাখা হয়েছিল হিসাব বহির্ভূত কোটি কোটি টাকা ও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্র। মাটিতে পুঁতে রাখা সেই সোনা, হিরা আর টাকার মোট মূল্য ৪৩৩ কোটি টাকা।

আয়কর কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, নগদ টাকা, হিরা, সোনা গুলো কয়েকটি কবরে রাখা হয়েছিল। কবর খুঁড়ে হিসাব বহির্ভূত নগদ ২৫ কোটি টাকা, ১২ কিলোগ্রাম ওজনের সোনা এবং ৬২৬ ক্যারাট ওজনের হিরা উদ্ধার করা হয়েছে। একই সঙ্গে চেন্নাই ও কোয়মবত্তূরের ৭২টি জায়গায় তল্লাশি চালানো হয়েছিল। প্রত্যেকটি জায়গাতেই ওই সারাভানা স্টোরের মালিক যোগারাথিনাম পোন্ডুরাই ও তাঁর সহযোগী রামজায়াম ওরফে বালার স্থাবর সম্পত্তি রয়েছে। বালা দু’টি প্রোমোটার সংস্থা ‘লোটাস গ্রুপ’ ও ‘জিস্ক্যোয়্যার’-এর মালিক।

তবে এক আয়কর অফিসার জানিয়েছেন, তাঁদের তল্লাশির খবর আগেই পেয়ে গিয়েছিলেন পোন্ডুরাই ও বালা। পুলিশের কাছ থেকেই সেই খবর তাঁরা পেয়ে গিয়েছিলেন। তখন তাঁরা একটি এসইউভি গাড়িতে টাকা, সোনা, হিরা নিয়ে পালিয়ে যান। দূরে একটি জায়গায় গিয়ে মাটিতে পুঁতে দেন সেগুলো।