মশিউল আলম। ছবিটি লেখকের ফেসবুক থেকে নেওয়া

‘সিলেট মিরর পুরস্কার’ পেতে যাচ্ছেন কথা সাহিত্যিক মশিউল আলম। সাহিত্যে বিশেষ অবদানের জন্য তাকে এ পুরস্কার দেওয়া হচ্ছে।

২৬ জুলাই এ পুরস্কার প্রদান করা হবে বলে জানায় সিলেট মিরর কর্তৃপক্ষ।

দৈনিক জাগরণ সম্পাদক ও পিআইবির চেয়ারম্যান আবেদ খান, শিক্ষায় পরিমল কান্তি দে এবং সংস্কৃতিতে নিজামউদ্দিন লস্করকেও এই পুরস্কার দেওয়া হচ্ছে এবার।

সম্প্রতি সিলেটে আনুষ্ঠানিকভাবে পুরস্কারপ্রাপ্তদের নাম ঘোষণা করেন সিলেট মিরর সম্পাদক আহমেদ নূর। পুরস্কারের অর্থমূল্য পঞ্চাশ হাজার টাকা। এছাড়া প্রত্যেককে স্বীকৃতি-স্মারক, ক্রেস্ট, বরণ-উত্তরীয় দেওয়া হবে।

এই পুরস্কার প্রদানের জন্য নাট্য ব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদারকে আহ্বায়ক করে ৫ সদস্যের একটি জুরি বোর্ড গঠন করা হয়েছিল। জুরি বোর্ডের সদস্য হিসেবে ছিলেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও কথাসাহিত্যিক অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক কামাল আহমদ চৌধুরী ও সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট এমাদউল্লাহ শহিদুল ইসলাম শাহিন।

১৯৬৬ সালে জয়পুরহাটে মশিউল আলমের জন্ম। মস্কোর পাত্রিস লুমুম্বা গণমৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতায় স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জনের পর দেশে ফিরে সাংবাদিকতা শুরু করেন। বর্তমানে প্রথম আলোয় কর্মরত। তাঁর লেখা উপন্যাস ও গল্পগ্রন্থের মধ্যে উল্লেখযোগ্য তনুশ্রীর সঙ্গে দ্বিতীয় রাত, ঘোড়ামাসুদ, জুবোফ্স্কি বুলভার, মাংসের কারবার, দ্বিতীয় খুনের কাহিনি।