ভোটাধিকার ও সুনাশনে জাতীয় ঐক্যের সদস্য হানিফ

সবার ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা ও সুষ্ঠু ভোটের পরিবেশ নিশ্চিত করাসহ বিভিন্ন দাবিতে টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া ১ হাজার ৪ কিলোমিটার একক পদযাত্রা শেষ করেছেন নোয়াখালির মোহাম্মদ হানিফ।

অনেকেই তাকে হানিফ বাংলাদেশী বলেই জানে। গত ১৪ মার্চ কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার জিরো পয়েন্ট থেকে পদযাত্রা শুরু করে ৩০ দিন পায়ে হেঁটে ১২ এপ্রিল শুক্রবার সকাল সাড়ে ১১টায় পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া পৌছান তিনি। তেঁতুলিয়া বাজারের তেঁতুলতলায় স্থানীয় অনেকেই তাকে স্বাগত জানান।

বিকেলে পঞ্চগড় প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে তিনি তার একক পদযাত্রার উদ্দেশ্যসহ বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরেন।

এ সময় ভোটাধিকার ও সুনাশনে জাতীয় ঐক্যের সদস্য হানিফ বলেন, পাকিস্তানিরা আমাদের ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়েছিল তাই মুক্তিযুদ্ধে লড়াইয়ের মাধ্যমে আমরা স্বাধীনতা লাভ করি এবং ভোটের অধিকার লাভ করি। কিন্তু স্বাধীনতার পরেও আমরা আবারও শোষিত ও ভোটাধিকার বঞ্চিত হচ্ছি। যে সরকার যখন ক্ষমতায় আসে, সেই সরকারই দীর্ঘ মেয়াদে ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য জনগণের ভোটাধিকার হরণের চেষ্টা করে।

সর্বশেষ জাতীয় নির্বাচনে সাধারণ ভোটাররা ভোট দিতে পারেনি। এই নির্বাচনের পর থেকে ভোটের প্রতি জনগণের আর কোনো আস্থা নেই। নির্বাচনে নেই কোনো উৎসবমুখর পরিবেশ। নির্বাচন ব্যবস্থা এখন প্রশ্নবিদ্ধ। যার প্রমাণ আপনারা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনগুলোতে দেখতে পাচ্ছেন। মানুষ কেন্দ্রে ভোট দিতে যায়নি। তারা ভোট না দিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছে। নির্বাচনের পাশাপাশি এই নির্বাচন কমিশনের প্রতিও মানুষের আস্থা নেই।

তারা সুষ্ঠু নির্বাচনে ব্যর্থ হয়েছে। তারা এখন কেবল আওয়ামীলীগের নির্বাচন কমিশন। তাই আমি নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগ দাবি করছি। একই সাথে সবার ভোটের অধিকার ও ভোটের সুষ্ঠু পরিবেশে নিশ্চিত করা ও জাতীয় নির্বাচনের জন্য স্থায়ীভাবে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার ব্যবস্থা পুনর্বহাল করার দাবি জানান।

তিনি জানান, এই পদযাত্রায় কয়েকটি স্থানে তিনি সরকার দলীয় ব্যক্তিদের কাছে বাঁধার শিকার হয়েছেন। তবে কোন বাঁধাই তাকে আটকাতে পারেনি। দৈনিক গড়ে ৩৩ কিলোমিটার হেঁটেছেন হানিফ। হাঁটতে হাঁটতে পায়ে ফসকা পড়ে গেছে। তারপরও তিনি তার পদযাত্রা চালিয়ে গেছেন। পদযাত্রা শেষ করলেও দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত তিনি তার আন্দোলন বিভিন্নভাবে চালিয়ে যাবেন বলে জানান। তার এই পদযাত্রায় গণমাধ্যমকর্মী ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সহযোগিতা পেয়েছেন বলে তিনি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

হানিফের দেয়া তথ্য মতে, তাঁর বাড়ি নোয়াখালীর সুধারাম উপজেলার নিয়াজপুর ইউনিয়নের জাহানাবাদ গ্রামে। তার পিতার নাম আব্দুল মান্নান ওরফে রেনু মিয়া। নোয়াখালীর বুলুয়া ডিগ্রি কলেজ থেকে ১৯৯৯ সালে উচ্চমাধ্যমিক পাস করেন তিনি। এরপর চট্টগ্রাম ওমর গনি এমএস কলেজে স্নাতকে ভর্তি হন। এরপর পড়াশোনা ছেড়ে তিনি চট্টগ্রাম বন্দরে সিঅ্যান্ডএফ (ক্লিয়ারিং এন্ড ফরোয়ার্ডিং) ব্যবসায় জড়ান।

২০১৬ সালে ড. কামাল হোসেন ও আ ব ম মোস্তফা আমিনের নেতৃত্বে গঠিত জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার যুব শাখার আহ্বায়কের দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমানে আ ব ম মোস্তফা আমিনের নেতৃত্বাধীন ফরোয়ার্ড পার্টির জাতীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক পদে রয়েছেন। এর আগেও রাজধানীতে গণশৌচাগার স্থাপন, মানবভ্রুণ হত্যা বন্ধ, সুবর্ণচরে গৃহবধূকে ধর্ষণের প্রতিবাদে আন্দোলন করেছিলেন হানিফ।

নুর আলম পুলক, পঞ্চগড়