মাদারীপুরের টেকেরহাট বন্দরের শিমুলতলা এলাকায় ভুয়া র‌্যাব ও সেনাবাহিনীর মেজর পরিচয় দিয়ে সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণার অভিযোগে রবিবার রাতে রাকিবুজ্জামান নামে সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত এক সৈনিককে আটক করেছে র‌্যাব-৮ মাদারীপুর ক্যাম্পের সদস্যরা।

এ সময় তার কাছ থেকে প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত র‌্যাবের স্টীকার সম্বলিত একটি প্রাইভেটকার, সেনাবাহিনীর তিন সেট কম্ব্যাট ইউনিফর্ম ও বিভিন্ন সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাব সূত্র জানায়, গ্রেফতারকৃত রকিবুজ্জামান বিভিন্ন সময় নিজেকে সেনাবাহিনীর মেজর এবং বর্তমান র‌্যাব কর্মকর্তার পরিচয় দিয়ে এলাকার সাধারণ জনগণ ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর লোকদেরকে বিভিন্ন ভয়ভীতি প্রদর্শন এবং প্রতারণামূলকভাবে অর্থ আত্মসাৎসহ বিভিন্ন অবৈধ কার্যক্রম চালিয়ে আসছিল।

র‌্যাব-৮ মাদারীপুর ক্যাম্পের কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম বলেন, স্থানীয়দের অভিযোগের প্রেক্ষিতে রাকিবুজ্জামানকে আটক করা হয়।

তার স্থায়ী ঠিকানা মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার চরঠেঙ্গামারায়। তার পিতার নাম মালেকুজ্জামান। সে সেনাবাহিনীতে সৈনিক হিসেবে কর্মরত ছিল। কয়েক বছর আগে স্বেচ্ছায় অবসর নিয়ে তার চিকিৎসক স্ত্রীকে নিয়ে টেকেরহাট বসবাস শুরু করে।

অবসরের পর কারো কাছে সেনাবাহিনীর পোষাক ও মনোগ্রাম সম্বলিত সরঞ্জামাদি থাকা অবৈধ। এছাড়া তার গাড়ির সামনের অংশে র‌্যাবের স্টীকার এবং সেনা অফিসারের ক্যাপ রাখা থাকায় স্থানীয় সবাই তাকে সেনা অফিসার হিসেবে চিনতো এবং বিভিন্ন কাজে অর্থ দিয়ে প্রতারণার শিকার হয়।

সে স্থানীয়দের কাছে সেনাবাহিনীর মেজর হিসেবে পরিচয় দিতো। তার বাসা থেকে কুরিয়ার সার্ভিসে মেজর রাকিবুজ্জামান নামে আসা একটি পার্সেল, একটি মোবাইল ফোন ও দুটি সীমকার্ডও জব্দ করা হয়েছে।

সাবেক সেনা সদস্য হওয়ায় তাকে আটকের বিষয়টি সেনা গোয়েন্দা সংস্থাকেও জানানো হয়।

এছাড়া তার বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়েরপূর্বক তাকে রাজৈর থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

-জহিরুল ইসলাম খান, মাদারীপুর