প্রতীকী ছবি: সংগৃহীত

ময়মনসিংহের ভালুকায় শ্যামলি বাংলা পরিবহনের একটি যাত্রিবাহী বাসের চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী এক ব্যবসায়ী এবং পৃথক দূর্ঘটনায় তারাকান্দায় সিএনজি’র ধাক্কায় ছিটকে পড়ে মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন।

সোমবার (১০ জুন) রাত ৯টার দিকে ভালুকা সদরের সরকারী কলেজের সামনে একটি এবং সোমবার সন্ধার দিকে ময়মনসিংহ-হালুয়াঘাট সড়কের তারাকান্দার মধুপুর বটতলা একালায় অপর দূর্ঘটনাটি ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ভালুকা উপজেলার দেলিয়া গ্রামের ইদ্রিস আলীর ছেলে ও ভরাডোবা এলাকার গার্মেন্টস ব্যবসায়ী মিজানুর রহমান মোটরসাইকেলে বাসায় ফেরার সময় ভালুকা সরকারী কলেজের সামনে ইউটার্ন নেওয়ার সময় বিপরিত দিক থেকে আসা শ্যামলি বাংলা পরিবহনের একটি যাত্রিবাহী বাস তাঁকে ধাক্কা দিলে ছিটকে পড়েন তিনি। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয়রা উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ভালুকা মডেল থানার ওসি মাঈন উদ্দিন জানান, ‘শ্যামলি বাংলা পরিবহনের ঘাতক বাসটিকে আটক করা হলেও ড্রাইভারকে আটক করা সম্ভব হয়নি। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে আরো জানান তিনি।

অপরদিকে সোমবার সন্ধার দিকে ময়মনসিংহ-হালুয়াঘাট সড়কের তারাকান্দা উপজেলার মধুপুর বটতলা এলাকায় সিএনজি’র ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী সাইফুল ইসলাম (২৫) নিহত এবং তার চাচাতোভাই মোটরসাইকেল চালক রনি মিয়া (২২) গুরুতর আহত হলে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। নিহত সাইফুল ইসলাম গাবরগাতি গ্রামের রমজান আলীর ছেলে।

আহত যুবক রনি জানান, তারাকান্দা উপজেলার গালাগাঁও ইউনিয়নের গাবরগাতি গ্রামের সম্পের্ক চাচাতো দুই ভাই মিলে মোটরসাইকেলে পলাশিয়া গ্রামে বিয়ে বাড়িতে যাচ্ছিলেন। পথে মধুপুর বটতলা একাকায় সিএনজি অটোরিকশার সঙ্গে ধাক্কা লেগে মোটরসাইকেল আরোহী সাইফুল ইসলাম গুরুতর আহত হলে হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান এবং মোটরসাইকেল চালক সে (রনি মিয়া) গুরুতর আহত হলে তাকে ফুলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

তারাকান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) মোঃ আবুল খায়ের এ সত্যতা নিশ্চিত করে জানান,দূর্ঘটনায় নিহতের পরিবারের আবেদনের প্রেক্ষিতে মরদেহ ময়নাতদন্ত ছাড়াই স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

আজকের পত্রিকা/মোঃ আজিজুর রহমান ভূঁঞা বাবুল/ময়মনসিংহ/রাফাত