নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার মৌখাড়া ইসলামিয়া মহিলা ডিগ্রী কলেজ মাঠে রোববার সকালে আম বয়ানের মধ্য দিয়ে তিন দিনব্যাপী ১৪ তম মহিলা বিশ্ব ইজতেমা শুরু হয়েছে।

প্রথম দিনেই হাজার হাজার ধর্মপ্রাণ মহিলা শীত উপেক্ষা করে ইজতেমায় সমবেত হন।

ইজতেমায় আগত সব মহিলাদের জন্য দুপুরের খাবারসহ দূরাগত মহিলাদের বিনা খরচে থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করেছেন আয়োজক কর্তৃপক্ষ। একই সঙ্গে মহিলাদের নিরাপত্তায় পর্যাপ্ত গোয়েন্দা ও নারী পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

প্রথম দিনে সকাল ১০টায় নাটোরের মাওলানা জাকারিয়ার আম বয়ানের মধ্য দিয়ে ইজতেমা শুরু হয়।

পরে সিরাজগঞ্জের মাওলানা জালাল উদ্দিন ও ঢাকার মাওলানা মো. মাহমুদুল হাসান শাহীন জঙ্গীবাদ মুক্ত দেশ গঠণে নারী ভূমিকার পাশাপাশি দ্বীন ও আখলাকপূর্ণ ব্যক্তি জীবন গঠণের আহবান জানিয়ে বয়ান করেন।

ইজতেমায় আলোচকরা বলেন, শান্তিময় পৃথিবী ও সুন্দর জীবন গড়তে সৎ ও চরিত্রবান মানুষ প্রয়োজন। আর সেজন্য কোরআন-হাদীসের যথাযথ চর্চা করতে হবে।

রাসুল (সাঃ) এর আদর্শ অনুযায়ী সোনার মানুষ গড়তে ধর্মীয় জ্ঞানার্জনের পাশাপাশি দৈনন্দিন জীবনে তার সঠিক প্রয়োগ করতে হবে। একই সঙ্গে ধর্মীয় উন্মাদনা তথা জঙ্গীবাদ সম্পর্কে সচেতন থাকার পাশাপাশি নিজেসহ সন্তানরা যেন এ ফাঁদে পা না দেয় সে ব্যাপারে নারীদেরকেই অগ্রণী ভূমিকা রাখার আহবান জানান বক্তারা।

ইজতেমার মূল আয়োজক আলহাজ্ব শের আলী শেখ জানান, মঙ্গলবার বিকালে আখেরী মুনাজাতের মাধ্যমে ইজতেমা শেষ হবে।

সমাপনী দিনে ভারতের পশ্চিমবঙ্গসহ দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে প্রায় ৫০ হাজার মহিলার সমেবত হবেন বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার আনোয়ার পারভেজ বলেন, সুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ব্যতিক্রমী এ ইজতেমায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় সব রকমের সহযোগিতা করা হচ্ছে।

পর্যাপ্ত সংখ্যক মহিলা ও পুরুষ পুলিশ মোতায়েনসহ মহিলাদের সার্বিক নিরাপত্তা বিধান করা হয়েছে।

-আসাদুল ইসলাম আসমত