নিহত আইনজীবি ও আটক ইমাম।

মৌলভীবাজারের বড়লেখায় খুন হওয়া নারী আইনজীবী আবিদা সুলতানার ব্যবহৃত ২ টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বুধবার দুপুরে শ্রীমঙ্গল উপজেলার বরুণা মাদ্রাসা মসজিদের ইমামের গাড়িচালকের কাছ থেকে ১টি মোবাইল ফোনটি উদ্ধার করা হয়। এর আগের দিন আইনজীবীর বাসার ভাড়াটিয়া ও হত্যা মামলার প্রধান আসামি মসজিদের ইমাম তানভীরের ব্যাগ থেকে উদ্ধার করা হয় আরও একটি মোবাইল ফোন।

পুলিশের ধারণা, তথ্য গোপন ও আলামত যাতে না পাওয়া যায় এজন্য হত্যার পর আবিদার ফোন নিয়ে আসে তানভীর। আবিদার মোবাইল ফোনের কল লিস্ট থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যাবে বলে পুলিশ আশাবাদী।

এদিকে ১০ দিনের রিমান্ডে থাকা তানভীরের কাছ হত্যার ক্লু পেয়েছে পুলিশ। তবে তদন্তের স্বার্থে বিস্তারিত বলতে নারাজ পুলিশ।
তবে বড়লেখা থানার ওসি (তদন্ত) জসিম উদ্দিন জানান, প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে গাছ কাটা, জমিজমা নিয়ে অভ্যন্তরীণ বিবাদ থেকে এ হত্যাকাণ্ড ঘটতে পারে।

রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে হত্যার মূল কারণ জানা সম্ভব হবে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

প্রসঙ্গত, রবিবার (২৬ মে) দিকে বড়লেখা উপজেলার দক্ষিণভাগ উত্তর ইউপির মাধবগুল গ্রামের বাড়ি থেকে আবিদা সুলতানার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ঘটনার পর আবিদার বাবার বাড়ির ভাড়াটিয়া তানভীর পালিয়ে যায়।

২৭ মে দুপুর দেড়টায় শ্রীমঙ্গল উপজেলার বরুনা মাদ্রাসা এলাকা থেকে মসজিদের ইমাম তানভীর আহমদকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এর আগে তানভীরের মা, স্ত্রীকে আটক করে পুলিশ। তারা ৩ জন এখন পুলিশি রিমান্ডে আছে।