ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এসএসসির ফলাফলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে আনন্দ উল্লাস।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শহরে জিপিএ-৫ শীর্ষে রয়েছেন অন্নদা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়। এ বিদ্যালয়ের ৩১২ শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ১৪২ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে।

৬ মে সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টায় স্বনামধন্য এ বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে এসএসসির ফলাফল ঘোষণা করেন প্রধান শিক্ষিকা ফরিদা নাজমীন। এসময় উল্লাসে মেতে উঠেন শিক্ষার্থীরা।

জিপিএ-৫ পাওয়া অন্নদা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ফলাফল ঘোষনার পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে শিক্ষার্থীরা জানান,

ভালো ফলাফলের পেছনে আমাদের বিদ্যালয়ের শ্রদ্ধেয় শিক্ষকদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে পাশাপাশি আমাদের বাবা মায়ের চেষ্টায় ও আমাদের পরিশ্রমে জিপিএ-৫ পেতে ভূমিকা রেখেছে। আমরা আনন্দিত। আগামী দিনে আরো ভালো ফলাফল অর্জন করতে সবার সহযোগিতা চাই।

ফলাফল ঘোষনার পর অন্নদা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা ফরিদা নাজমীন সাংবাদিকদের জানান, এ বছর আমাদের বিদ্যালয় থেকে ৩শত ১২ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে ৩শত ১১ জন পাস করেছে। এতে পাসের হার ৯৯ দশমিক ৬৮ শতাংশ। একজন শিক্ষার্থী অসুস্থ থাকায় শতভাগ ফলাফল অর্জন করা যায়নি।

তিনি আরো বলেন, পাসকৃত পরীক্ষার্থীদের মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১শত ৪২ জন। জিপিএ-৫ এর সংখ্যায় জেলার শীর্ষ স্থান অর্জন করেছে প্রতিষ্ঠানটি। এ সাফল্য অর্জন করায় তিনি বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবকদের ধন্যবাদ ও অভিনন্দন জানান।

অপরদিকে, শহরের গর্ভমেন্ট মডেল গালর্স হাই স্কুল থেকে ২শত ১২জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে ২১০ জন পাস করেছে। এদের মধ্যে মোট জিপিএ-৫ পেয়েছে ৮৯ জন। পাসের হার ৯৯ দশমিক ৬ শতাংশ। এছাড়া সাবেরা সোবহান সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৩শত ২২জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে পাস করে ৩১৮জন । মোট পাশের হার ৯৮ দশমিক ৭৬ শতাংশ। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৭৬ জন।

গ্যাস ফিল্ড উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২২৩ পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে পাশ করেছেন ২১৭ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪৪ জন। পাশের হার ৯৭ দশমিক ৩১ শতাংশ। ব্রাহ্মণবাড়িয়া উচ্চ বিদ্যালয় (বালক) থেকে ২২৫ পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে পাস করেছে ২১৩ জন। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২০ জন। আইডিয়াল রেসিডেন্সিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে পরীক্ষা দিয়েছে ১৮৩ শিক্ষার্থী। এর মধ্যে পাস করেছে ১৮১ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৩জন। মোট পাসের হার ৯৮ দশমিক ৯১ শতাংশ। এছাড়া শহরের আনন্দময়ী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৮ শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে পাস করেছে ১৬৯ জন। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে দুইজন। পাসের হার ৮৫ দশমিক ৩৫ শতাংশ।

উল্লেখ্য, এ বছর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা থেকে এসএসসি, দাখিল ও ভোকেশনাল পরীক্ষায় ৩২ হাজার ৫ শ ১৭ শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন।

মোঃ এনামুল হক/ব্রাহ্মণবাড়িয়া