বেঁচে থাকা মানেই প্রতিটা মানুষকে যাপন ব্যবস্থার কারণে ব্যস্ত থাকতেই হবে। প্রাপ্ত বয়স্ক যে কোনো মানুষেরই সকাল থেকে রাত পর্যন্ত কাটাতে হয় কর্মব্যস্ত সময়। দু দণ্ড অবসরের সময়ও পায় না অনেকে। তার উপর যদি জীবনটা হয়ে থাকে আর আট-দশজন সাধারণ মানুষের থেকে আলাদা, অথচ আরো বেশি দায়িত্বসম্পন্ন, তবে অবসরের কল্পনা করা জেগে থেকে স্বপ্ন দেখার মতোই।

তেমনই একজন মানুষ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। রাষ্ট্রের গুরুত্বপুর্ণ পদের দায়িত্বে থাকার কারণে স্বাভাবিক ভাবেই অন্য আর আট-দশজন মানুষের চেয়ে অনেক বেশি ব্যস্ততায় কাটাতে হয় তাঁর সময়। এ কারণে ফুসরত পান না পরিবারের সাথে অথবা একান্ত নিজের মতো করে কিছুটা সময় কাটাতে।

নিজের এই আক্ষেপের কথা সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজেই জানালেন প্রতিমন্ত্রী। এয়ারপোর্টে ১ ঘণ্টার বিরতিতে স্ত্রীর হাতের খাবার খাওয়ার একটি ছবি পোস্ট করে তিনি লিখেছেন, ‘ব্যস্ততা আমাকে দেয় না অবসর
তাই বলে ভেবো না আমায় স্বার্থপর…’। প্রতিমন্ত্রী ফেসবুক স্ট্যাটাসটি হুবুহু তুলে দেওয়া হলো-

‘৪৬৩১ কিলোমিটার দূর থেকে ওয়ার্ল্ড কংগ্রেস অন আইটিতে যোগদান শেষে আজকে সকালেই ফিরলাম ঢাকা এয়ারপোর্টে।
হঠাৎ চমকে গেলাম এত সকালে এয়ারপোর্টে কনিকাকে দেখে! আর এখান থেকেই আমার রওনা হতে হবে রাজশাহীতে ১ ঘন্টা পরের ফ্লাইটে! তাই কী আর করার! বাড়ি থেকে আমার পছন্দের ডিম ভাজি, বেগুন ভাজি আর সাদা ভাত নিয়ে এসেছিল কনিকা ♥ খেয়ে নিলাম এয়ারপোর্টে বসেই।’

আজকের পত্রিকা/সিফাত