ধর্ষণ। ছবি:সংগৃহীত

ভোলা বোরহানউদ্দিন উপজেলার দেউলা তালুকদার বাড়ীর বশির তালুকদারের ছেলে আলিফ তালুকদার আশ্রিত কাজের মেয়ে ধর্ষনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ধর্ষিতা হাসনা বেগম ৪ মাসের অন্ত:সত্তা হয়ে বিচারের জন্য দ্বারে দ্বারে ঘুরে বোরহানউদ্দিন থানায় অভিযোগ দিলে ধর্ষক আলিফ কে আটক করেন থানা পুলিশ।

ধর্ষিতা হাসনা বেগম বোরহানউদ্দিন বড় মানিকা ইউনিয়নের নুন্দী বাড়ির বশিরের মেয়ে। ধর্ষিতা হাসনা অভিযোগ করে জানান, জম্মের পর পরই তার মা মারা গেলে দিনমজুর বাবা দ্বিতীয় বিবাহ করে এবং ৪ বছর বয়সে তাদের জমজ দুই বোনের মধ্যে তাকে দেউলা তালুকদার বাড়ির বশির তালুকদারের কাছে কাজের জন্য রেখে ঢাকা চলে যায়।

এভাবে অনাদরে ৪ বছরের শিশু মেয়েটি খেলার বয়স থেকে আশ্রিতার বাসায় কাজ করে পেটের ক্ষিদা মিটায়। এভাবে সে এখন ১৫ বছরের কিশোরী হয়ে সে আশ্রিতার বাসায় কাজ করে যাচ্ছে। গত রমজান মাসের ঈদের পর পর আশ্রিতা বশির তালুকদার ও তার স্ত্রী ঘরে না থাকার সুবাদে তার কলেজ পড়ুয়া ছেলে আলিফ তালুকদারের কু-লালসা পড়ে হাসনা বেগমের দিকে এবং ঘরের দরজা লাগিয়ে তাকে জোর পূর্বক ধর্ষন করে।

ধর্ষিতা হাসনা বশির তালুকদার ও তার স্ত্রীকে ঘটনা জানালে উল্টো তাকে ঘটনা কাউকে না জানানোর হুমকি দেয় ফলে সে ভয়ে কাউকে জানায়নি কিন্তু আস্তে আস্তে সে যখন গর্ভবতী হতে তাকে এবং তার শারিরিক সমস্যার কথা বশির তালুকদারের স্ত্রীকে জানালে সে বলে পেটে তার অন্য সমস্যা পরবর্তীতে যখন বশির তালুকদার ও তার স্ত্রী যখন বুঝতে পারে হাসনা গর্ভবতী হয়ে পড়েছে তখন নিজেরা বাচাঁর জন্য রাতের আধারে একটা অটো রিক্সা ভাড়া করে হাসনা বড় বোনের কাছে পাঠিয়ে দেয় বড় বোন শনিবার বোরহানউদ্দিন হাসপাতালে এনে ডাক্তার দেখালে ডাক্তার নিশ্চত করেন হাসনা ৪ মাসের অন্ত:সন্তা। এর পর রবিবার সকালে বোরহানউদ্দিন থানায় অভিযোগ দিলে পুলিশ আলিফ তালুকদার কে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আলিফ বোরহানউদ্দিন থানা হেফাজতে রয়েছে।

এব্যাপারে বোরহানউদ্দিন থানার ওসি তদন্ত আ: কাদের জানান, অভিযোগ পেয়ে আলিফ কে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

আবদুল মালেক/বোরহানউদ্দিন