ইলিশের মূল্য চড়া। ছবি : সংগৃহীত

পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে ইলিশের মূল্য এখন চড়া। এক কেজির একটি ইলিশ সংগ্রহ করা মানে আকাশ ছোঁয়া অবস্থা। এক কেজির বেশি ওজনের একটি ইলিশের দাম বিক্রেতারা চার হাজার টাকা থেকে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত চাচ্ছেন।

১৩ এপ্রিল শনিবার রাজধানীর ঝিগাতলা, হাতিরপুল, শেওড়াপাড়া, কাজীপাড়া, শান্তিনগর, খিলগাঁও ও কারওয়ান বাজার ঘুরে এমন চিত্র পাওয়া গেছে। এক মাস আগেও এক কেজি ওজনের একটি ইলিশ সর্বোচ্চ দেড় হাজার টাকায় বিক্রি হয়েছে।

রাজধানীর এসব বাজারগুলো ঘুরে দেখা যায় ৫০০ গ্রামের কম ওজনের ইলিশ প্রতি হালি বিক্রি হচ্ছে এক হাজার থেকে এক হাজার ৫০০ টাকা, ৫০০ গ্রাম থেকে ৭০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ প্রতি হালি বিক্রি হচ্ছে দুই হাজার ৫০০ থেকে দুই হাজার ৮০০ টাকায় এবং ৮০০ খেকে ১ কেজি ওজনের ইলিশ প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে চার হাজার থেকে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত।

কারওয়ান বাজারের মাছের দোকানের বিক্রেতা আবু ছায়েম, মো. জয়নাল, মো. আশরাফ বলেন, ‘বৈশাখ এলে ইলিশের চাহিদা বাড়ে। তবে এবারের চিত্র ভিন্ন। সরকার মার্চ ও এপ্রিল এ দুই মাস জাটকা ধরা নিষিদ্ধ করায় নদীতে বড় ইলিশ ধরা পড়েছে।

আর সেই ইলিশ অতি লাভের আশায় মজুদ করে রেখেছিল কিছু অসাধু ব্যবসায়ীরা। আমরা ছোট ব্যবসায়ীরাও তাদের কাছে বন্দি। কারণ আমাদেরও বেশি দামে কিনতে হচ্ছে তাদের কাছ থেকে।’

কারওয়ান বাজারে ইলিশের দোকানে দরদাম করছিলেন মো. নজরুল ইসলাম। জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘দাম যেভাবে বেড়েছে, তাতে আমাদের মতো চাকরিজীবীদের আর কেনার সুযোগ নেই।’

এদিকে, পহেলা বৈশাখে চাহিদা বাড়ায় দেদারসে নকল ইলিশও বিক্রি হচ্ছে। ইলিশ ভেবে অনেক ক্রেতা সার্ডিন ও চৌক্কা মাছ কিনে ঠকছেন। এই মাছ দুটি স্বাদে-গন্ধে ইলিশের ধারের কাছেও নেই।

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের এ তথ্যে জানা গেছে, সার্ডিন মাছ অনেকটা আকারে জাটকার মতো হলেও চৌক্কা বেশ বড় হয়। লম্বায় অনেকটা ইলিশের কাছাকাছি। তবে ইলিশের চেয়ে চওড়ায় বেশ কম। সার্ডিন ও চৌক্কার চোখের আকার বড়। চৌক্কার মাথা লম্বাটে ও সুচালো।

সার্ডিনের মাথা বড় ও সামনের অংশ ভোঁতা। ভালো করে খেয়াল করলে পার্থক্য বোঝা যায়। প্রতি কেজি সার্ডিন মাছের দাম ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা। এদের ওজন হয় ৪শ গ্রাম থেকে ৭শ গ্রাম।

আজকের পত্রিকা/আর.বি/জেবি