সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ঝাউডাঙ্গা ইউনিয়নের গোবিন্দকাটি এলাকায় তৃতীয় শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে সাজু সরদার নামে এক যুবককে আটক করেছে গ্রামবাসী। শনিবার সকাল ৮টার দিকে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। এরপর পালিয়ে যায় ধর্ষক সাজু। পরে গ্রামবাসী তাকে আটক করে পুলিশে দেয়।
ধর্ষিতা শিশু মেয়েটি (৯) স্থানীয় রুদ্রপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী। ধর্ষক সাজু সরদার (২২) গোবিন্দকাটি গ্রামের আলমগীর সরদারের ছেলে।

ধর্ষিতার স্বজন ও স্থানীয়রা জানান, সকালে বৃষ্টির মধ্যে সাড়ে সকলে যখন বাড়ির বিভিন্ন কাজে ব্যস্ত তখন প্রতিবেশী চাচাতো ভাই সাজু খাবার খাওয়ানোর প্রলোভন দেখিয়ে নিজেদের বাড়িতে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে ধর্ষণ করে রক্তাক্ত অবস্থায় শিশুটিকে ফেলে পালিয়ে যায়। পরে মেয়েটি বাড়িতে গিয়ে ঘটনাটি তার মাকে জানায়। পরে শিশুটিকে রক্তাক্ত অবস্থায় সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে তার পরিবার।

স্থানীয়রা আরও জানায়, ঘটনার পর পালিয়ে যায় সাজু। পরে প্রামবাসী তাকে খুজে বের করে আটক পুলিশে ধরিয়ে দেয়।

ঘটনার বিষয়ে সাতক্ষীরা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, মেয়েটি চিকিৎসাধীন রয়েছে। পরিবারের পক্ষ থেকে এখনো কোন অভিযোগ দায়ের করা হয়নি। অভিযুক্ত সাজু সরদার পুলিশের নজরদারির মধ্যে রয়েছে। অভিযোগ পাওয়ার পর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সাজু পুলিশের হাতে আটক থাকলেও পুলিশ স্বীকার করেনি। গ্রামবাসী তাকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে।

আজকের পত্রিকা/আকরামুল ইসলাম/সাতক্ষীরা প্রতিনিধি