বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে ছাত্র শিবিরের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে পিটিয়ে মেরেছিল একই বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত শিক্ষার্থীরা। এবার একই কারণে এবং একই কায়দায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হলের ৪ ছাত্রকে পেটানোর পর হল প্রশাসনের মাধ্যমে পুলিশে দিয়েছে ছাত্রলীগ।

এ ঘটনার বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক এ কে এম গোলাম রব্বানী গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘ওই ৪ ছাত্রকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় দিয়েছে হল প্রশাসন।’

২১ জানুয়ারি মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হলের অতিথিকক্ষে ‘গেস্টরুম কর্মসূচি’ শেষে রাত দুইটা পর্যন্ত ওই শিক্ষার্থীদের পেটায় ছাত্রলীগের একদল নেতা-কর্মী। পরে হল প্রশাসন ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল টিমের মাধ্যমে তাদের রাজধানীর শাহবাগ থানায় সোপর্দ করা হয়। ২২ জানুয়ারি বুধবার বেলা দেড়টার দিকে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

ওই চার ছাত্র হলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সানওয়ার হোসেন, টুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মো. মুকিম চৌধুরী, একই বর্ষের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষার্থী মিনহাজ উদ্দীন ও আরবি বিভাগের শিক্ষার্থী আফসার উদ্দীন।

এদিকে এ ঘটনার প্রতিবাদে আজ বিকেলে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহসভাপতি (ভিপি) নুরুল হকের নেতৃত্বাধীন ১২ ছাত্রসংগঠনের জোট সন্ত্রাসবিরোধী ছাত্রঐক্য।

হল সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রাত ১১টার দিকে শিবির সন্দেহে মুকিমকে অতিথিকক্ষে নিয়ে আসেন শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হল শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি আনোয়ার হোসাইন ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আমির হামজা। পরে সেখানে আসেন হল শাখা ছাত্রলীগ ও হল সংসদের সহসভাপতি (ভিপি) সাইফুল্লাহ আব্বাসী অনন্তসহ বেশ কয়েকজন নেতা। তারা মুকিমকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে থাকেন। মুকিমের সঙ্গে যোগাযোগ থাকায় পরে আফসারকেও অতিথিকক্ষে ডেকে পাঠায় তারা। কিছুক্ষণ পর অতিথিকক্ষ থেকে মুকিম ও আফসারকে হলের বর্ধিত ভবনে নিয়ে যায়। মুকিম ও আফসারের সঙ্গে সানওয়ার ও মিনহাজের ফেসবুকে যোগাযোগ থাকায় তাদেরও ডেকে পাঠান ছাত্রলীগের নেতারা।

জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে ছাত্রলীগের প্যানেল থেকে নির্বাচিত হল সংসদের ভিপি সাইফুল্লাহ আব্বাসী অনন্ত ও হল শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহীন আলম চার ছাত্রকে চড়-থাপ্পড় মারতে থাকেন। একপর্যায়ে হাতুড়ি দিয়েও চার ছাত্রকে পেটায়। লাঠি, রড ও হাতুড়ি নিয়ে মারধরে অংশ নেন হল শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি কামাল উদ্দিন রানা ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আমির হামজাসহ আরও কয়েকজন। রাত দুইটা পর্যন্ত এই নির্যাতন চলে। পরে রাত দুইটার দিকে হলের একজন আবাসিক শিক্ষক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল টিমের মাধ্যমে চার ছাত্রকে শাহবাগ থানায় সোপর্দ করেন ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। পুলিশ গতকাল রাতে চার ছাত্রের মারধরে গুরুতর আহত দুজনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে যায়।

হল সংসদের ভিপি সাইফুল্লাহ আব্বাসী অনন্ত, হল শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি আনোয়ার হোসাইন ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আমির হামজা গণমাধ্যমকে জানান, ওই ৪ ছাত্রের শিবির-সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পেয়েছিলেন বলেই তাদের থানায় দেওয়া হয়েছিল। প্রমাণগুলো তারা পুলিশকে দিয়েছেন।

ঘটনার বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক এ কে এম গোলাম রব্বানী বলেন, ওই চার ছাত্র কোনো শৃঙ্খলাপরিপন্থী কাজে জড়িত কিনা, তা খতিয়ে দেখতে তাদের থানায় দেওয়া হয়েছে। অভিযোগের কোনো প্রমাণ না পাওয়া গেলে তাদের ছেড়ে দেওয়া হবে। এদিকে শাহবাগ থানা সুত্রে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ না পাওয়ায় ওই ৪ ছাত্রকে জিজ্ঞাসাবাদের পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

আজকের পত্রিকা/সিফাত