ধান।

নওগাঁর পত্নীতলায় উপজেলার মাটিন্দর ইউপির সিংহন্দি এলাকার জনৈক ওলিউল্লাহ সহ তার ভাইদের ১.১৪ একর জমির জিরা ধান বিন্না মারা বিষ দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়ার ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে। নায্য বিচারের দাবীতে দ্বারে দ্বারে ঘুরেও বিচার না পেয়ে হতাশায় ভুগছে ওলিউল্লাহ সহ তার পরিবার।

এঘটনায় ওলিউল্লাহ সহ তার ভাইয়েরা জানান, আমরা ন্যায্য ক্রয়কৃত সম্পত্তিটি দীর্ঘদিন যাবৎ ভোগ দখল করলেও মতিয়ারের ক্ষমতার দাপটে বার বার ক্ষতি গ্রস্থ হচ্ছি। যার কোন সুষ্ঠু বিচার আমরা পাচ্ছিনা। নায্য বিচারের দাবীতে দ্বারে দ্বারে ঘুরেও বিচার না পেয়ে হতাশায় ভুগছে তার পরিবার।

অভিযোগ সূত্রে জানাগেছে, উপজেলার মাটিন্দর ইউপির সিংহন্দি এলাকার মোঃ এরফান আলীর ছেলে ওলিউল্লাহ (৩৫) সহ তারা চার ভাই একই এলাকার গফের আলীর ছেলে মতিয়ার রহমান (৩৫) ও তার মা’র কাছ থেকে ১৯৯৬ সালে পত্নীতলা থানাধীন গোবিন্দপুর মৌজার জেএল ১২৯, খতিয়ান নং- ৯৭, দাগ নং- ১৮৪, ১৮৫, ১৮৭ এর ২১১০, ২১১১ নং দলিলে ১একর ১৪.৫০ শতক জমি কোবলা সুত্রে প্রাপ্ত হয়ে প্রায় ১৭ বছর যাবত ভোগ দখল করে আসার এক পর্যায়ে গত ২০১৩ সালে মতিয়ার রহমান সহ তার লোকজন হঠাৎ করেই উক্ত জমিতে এসে ৫লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করলে ওলিউল্লাহ (৩৫) সহ তার ভাইয়েরা ঐ টাকা দিতে না পারায় মতিয়ার রহমান সহ তার লোকজন ক্ষমতার দাপট খাটিয়ে জোর পূর্বক দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে জবর দখলের চেষ্টা করে এবং কয়েক মৌশুমের ধান তারা কেটে নেয়। এরই প্রেক্ষিতে ওলিউল্লাহ সহ তার ভাইয়েরা প্রশাসনের স্বরনাপন্ন হয়ে থানা সালিসের ব্যবস্থা করে। কিন্তু মতিয়ার থানার সালিস না মেনে জোর পূর্বক আবারও জমির ধান কেটে নেয়।

এঘটনায় ওলিউল্লাহ সহ তার ভাইয়েরা আবারও নওগাঁ পুলিশ সুপারের অফিসে অভিযোগ দায়ের করে। এঅবস্থায় উভয় পক্ষকে ডেকে কাগজপত্র যাচাই অন্তে মতিয়ার ঐ জমি বিক্রি করেছে বলে স্বীকার করলে স্থানীয় চেয়ারম্যান, মেম্বার সহ গন্যমান্য ব্যক্তি বর্গের সমন্বয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে উক্ত জমি ওলিউল্লাহ ও তার ভাইদের বুঝিয়ে দেয় মতিয়ার। কিন্তু মতিয়ার ক্ষমতার দাপটে তাদের পিছু ছাড়েনা। সে রাতের আঁধারে তাদের ক্ষতি স্বাধনের জন্য উক্ত জমির ফসলে দফায় দফায় বিন্না মারা বিষ প্রয়োগ করে ক্ষতি স্বাধন করতে থাকে।

সর্বশেষ গত ১০ এপ্রিল/১৯ বুধবার রাতে আবারও মতিয়ার সহ তার লোকজন উক্ত জমিতে অনাধিকার প্রবেশ করে বিন্না মারা বিষ প্রয়োগ করে। এতে পুরো জমির জিরা ধান পুড়ে যায় মর্মে ওলিউল্লাহ পত্নীতলা থানায় অভিযোগ দায়ের করলে স্থানীয় কৃষি অফিস ও পত্নীতলা থানা সরজমিনে উক্ত ঘটনা তদন্ত করেন।

এবিষয়ে উপজেলা কৃষি অফিসার প্রকাশ চন্দ্র সরকার জানান, বিষয়টি জানারপর তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে বিষ প্রয়োগে ধান পুড়িয়ে দেওয়ার সত্যতা পেয়েছেন।

এব্যাপারে পত্নীতলা থানার অফিসার ইনচার্জ পরিমল কুমার চক্রবর্তী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এবারের ইরি-বোরো মৌশুমে এনিয়ে থানার বেশ কয়েকটি এলাকায় ধান পুড়ানোর ঘটনা ঘটেছে। এ বিষয়ে মাটিন্দরের সিংহন্দির ওলিউল্লাহ সহ তার ভাইদের কাগজপত্র সহ থানায় ডেকে পাঠানো হয়েছে।

উল্লেখ্য এবারের ইরি-বোরো মৌশুমে একই ভাবে উপজেলার সুবরাজপুর এলাকার জনৈক ফয়জুল হক চৌধুরীর ১২ একর জমির ধান ও পাটিচরা ইউপির আমিনাবাদ এলাকার জনৈক আবু ইউসুফের ২.৪ একর জমির ধান পুড়িয়ে দেওয়ারও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

তানভীর চৌধুরী, নওগাঁ