আধপাকা একটি গোয়ালার এক কোণে ঠায় দাঁড়িয়ে আছে একটি গাভী। আর তার দুধ পান করছে একটি বাছুর ও চারটি ছাগল ছানা। একই প্রজাতির না হয়েও একটি গরুর মাতৃস্নেহ বিলিয়ে দেওয়ার বিরল এ ঘটনা সম্প্রতি দেখা গেলো দিনাজপুরের হিলির বিশাপাড়া গ্রামে। খোঁজ নিয়ে জানা গেলো, ওই গাভী ও ছাগল ছানার মালিকের নাম ইনছান আলী মণ্ডল।

পেশায় কৃষক ইনছান জানান, দেড় মাসেরও বেশি সময় ধরে গাভীর দুধ পান করে বড় হচ্ছে ছাগল ছানাগুলো। একসঙ্গে বাছুর ও ছাগল ছানার দুধ খাওয়ার দৃশ্য দেখতে এখন প্রায় প্রতিদিনই তার বাড়িতে ভিড় করেন আশপাশের গ্রামের মানুষেরা।

ইনছান আলীর আলীর স্ত্রীর নাম হোসনে আরা বেগম। তিনি বলেন, ‘আজ থেকে প্রায় দেড় মাস আগে আমাদের গাভীটি একটি বাছুর দেয়। এর পরের দিন আমাদের বাসার ছাগলও বাচ্চা দেয় এবং একসঙ্গে ৪টি। গরু-বাছুর ও ছাগল ও ছাগল ছানাদের একই গোয়ালে একইসঙ্গে রাখা হয়। সংখ্যায় বেশি হওয়ায় ছানাগুলো ঠিকঠাক মায়ের দুধ পাচ্ছিল না। প্রথম দিন দুধ কিনে এনে ছাগল ছানাগুলোকে খাওয়ানো হয়। কিন্তু পরের দিন থেকে আর তার দরকার হয়নি। তিনি আরও বলেন,‘পরের দিন থেকে বাছুরের দেখাদেখি গাভীর দুধ খেতে শুরু করে ছাগল ছানাগুলো। এরপর থেকে এভাবেই চলছে। ছাগল ছানাগুলোকে গরুর দুধ খাওয়াতে আমাদের কিছুই করতে হয় না। নিজ সন্তানের মতো পরম মমতায় গাভীটি ছাগল ছানাদের দুধ দিয়ে থাকে।’

কাওসার আহমেদ ও রমিজন বিবি নামে দুই স্থানীয় বাসিন্দা জানান, আমরা এলাকাবাসী দেখছি, ছাগল ছানা ও বাছুর একসঙ্গে গাভীর দুধ পান করছে। এক্ষেত্রে গাভীটি কোনোরকম সমস্যা করে না। এটি আমাদের কাছে বিস্ময়কর লেগেছে। হাকিমপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসার ডা. আব্দুস সামাদ বলেন,‘মায়ের শরীর থেকে প্রয়োজনীয় দুধ বা পুষ্টি না পেলে ছাগল ছানা গাভীর দুধ খেতে পারে। এটা একেবারে নতুন নয়। প্রাণিকুলে এমনটা দেখা যায়। তবে এটা সচরাচর ঘটে না।

আজকের পাত্রিকা/আরকে