সাবিনা

বিরলে বখাটের ছুরিকাঘাতে সাবিনা নামের এক স্বামী পরিত্যাক্তা নারী চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেছে। ছুরিকাঘাতের পর থেকেই ঘাতক বখাটে পলাতক রয়েছে। লাশ ময়না তদন্তর শেষে পরিবারের নিকট হস্তান্তর করেছে পুলিশ।

নিহত সাবিনার মা শাহিনা বেগম জানান, উপজেলার ৯ নং মঙ্গলপুর ইউপি’র মোস্তফাবাদ (পাঠানপাড়া) গ্রামের মোঃ রাজা’র পুত্র বদিউজ্জামান (২৫) পার্শ্ববর্তী সফিকুল ওরফে পচুর স্বামী পরিত্যাক্তা কন্যা সাবিনা বেগম (২২) কে ১৫ অক্টোবর বৃহষ্পতিবার রাত আনুমানিক সাড়ে ৮ টায় মোবাইল ফোনে গ্রামীণ ব্যাংক মঙ্গলপুর শাখা কার্যালয় চত্ত্বরে বিশ্রাম নেয়ার বেে ডেকে নিয়ে ইট দিয়ে বেধড়ক মারপিট করে।

এ সময় আশপাশের লোকজন আসার শব্দ পেয়ে সাবিনার পেটে ছুরি মেরে বখাটে বদিউজ্জামান পালিয়ে যায়। সাবিনা ছুরিকাহত অবস্থায় কোনমতে বাজারে এসে পৌঁছলে স্থানীয় লোকজন তাঁর পিতাকে সংবাদ দেয়। পরে তাঁকে বিরল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। অবস্থা শংকাজনক হওয়ায় পরদিন শুক্রবার উন্নত চিকিৎসার জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার রাত সোয়া ১২ টায় সাবিনার মৃত্যু হয়। ঘটনায় দিনাজপুর কোতয়ালি থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের হয়। বুধবার দুপুরে কোতয়ালি থানা পুলিশ লাশ ময়না তদন্ত শেষে সাবিনার পিতা সফিকুল এর নিকট হস্তান্তর করে এবং বিকালে জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করার প্রস্তুতি নেয়া হয়।

এ ব্যাপারে গ্রামীণ ব্যাংক মঙ্গলপুর শাখার ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপক ছামিউল হক জানান, অফিসে পিয়ন/প্রহরী ফিরোজ আছেন। এরকম কোন ঘটনা তিনি জানেন না।

প্রহরী মোঃ ফিরোজ জানান, ঘটনার দিন তিনি অফিসে ছিলেন না, বোচাগঞ্জে বাসায় ছিলেন। এ বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না এবং গতকাল লোকমুখে তিনি বিষয়টি জেনেছেন।

বিরল থানার অফিসার ইনচার্জ এ টি এম গোলাম রসুল জানান, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সেরাজুল ইসলাম আমাকে বিষয়টি জানিয়েছেন। ময়না তদন্ত শেষে এজাহার দাখিলের প্রস্তুতি নিচ্ছে নিহতের পরিবার। এ ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মোঃ আতিউর রহমান/বিরল