সারাদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছে কিছু নতুন নির্দেশনা পাঠাচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এসব নির্দেশনা অনুসরণ না করা হলে অভিযুক্তদের এবং প্রতিষ্ঠানের স্বীকৃতি ও সরকারি সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা বাতিল এবং শিক্ষকদের বেতনের সরকারি অংশ স্থগিত বা একেবারেই স্থগিত করা হতে পারে।

এছাড়াও শিক্ষার গুণগত মান নিশ্চিত করতে ম্যানেজিং কমিটির হাত থেকে সকল নিয়োগ কার্যক্রম পুরোপুরিভাবে খর্ব করা হচ্ছে। বর্তমানে শুধু সহকারী শিক্ষক, প্রভাষক এবং মাদ্রাসায় সহকারী মৌলভি নিয়োগ কার্যক্রম এনটিআরসিএ করলেও এখন থেকে কর্মচারী, অধ্যক্ষ ও উপাধক্ষ্যের নিয়োগ কার্যক্রমও এনটিআরসিএর নিয়ন্ত্রণে দেওয়ার উদ্যোগ নিতে যাচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।
প্রসঙ্গত, ঘুষ ও দুর্নীতির মাধ্যমে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয় এমন অভিযোগের পর ম্যানেজিং কমিটি ও গভর্নিং বডির হাত থেকে এই নিয়োগ কার্যক্রম ২০০৫ সালে কেড়ে নিয়ে বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশনের (বিপিএসসি) আদলে গঠন করা হয় এনটিআরসিএ। তারপর থেকেই সর্বশেষ ১৫টি নিয়োগ কার্যক্রম শেষ করেছে এনটিআরসিএ। এত দিন শুধু অধ্যক্ষ, উপাধক্ষ্য এবং কর্মচারী নিয়োগ কার্যক্রম কমিটির হাতে ছিল। এখন সেটাও এনটিআরসিএর দায়িত্বে দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে। আর তা বাস্তবায়ন করতে সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে একটি নির্দেশনা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগে এসেছে।
এ ব্যাপারে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব সোহরাব হোসাইন জানান, এসডিজি লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে শিক্ষক নিয়োগের এই কার্যক্রম সম্পূর্ণভাবে এনটিআরসিএর হাতে দেওয়ার জন্য একটি নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে। তবে আগে বিদ্যমান আইনের সংশোধনী আনতে হবে।
এ নিয়ে আগামী কিছু দিনের মধ্যেই কাজ শুরু হবে বলেও জানান তিনি।