মাহমুদ উল্লাহ্‌
বিজনেস করেসপন্ডেন্ট

বিডা এবং বিল্ড এর আয়োজনে ট্যাক্স হলিডে বা কর অবকাশ সংক্রান্ত বৈঠক। ছবি: বিডা

‘রিভিজিটিং ট্যাক্স হলিডে পলিসি অফ বাংলাদেশ ফর প্রোমোটিং ইনভেস্টমেন্ট এন্ড এক্সপোর্ট’ শিরোনামে ১৯ মে রবিবার বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা)- এর সভাকক্ষে বিডা এবং বিল্ড (বিজনেস ইনিশিয়েটিভ লীডিং ডেভেলপমেন্ট ) এর আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল ট্যাক্স হলিডে বা কর অবকাশ সংক্রান্ত বৈঠক।

বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন বিডা’র নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী মোঃ আমিনুল ইসলাম এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে আমন্ত্রিত বাংলাদেশ জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মোঃ মোশাররফ হোসেন ভুঁইয়া-এর পক্ষে প্রতিনিধিত্ব করেন কানন কুমার রায়, সদস্য (আয়কর নীতি), জাতীয় রাজস্ব বোর্ড। সেশন চেয়ারপার্সন হিসেবে বক্তব্য দেন মোঃ হুমায়ুন রশিদ, সাবেক সহসভাপতি, ঢাকা চেম্বার অভ্‌ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ।

বৈঠকে বিল্ড-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফেরদৌস আরা বেগম পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে বাংলাদেশে বিদ্যমান করাবকাশ সুবিধার চিত্র তুলে ধরেন। অতঃপর তিনি বিশ্বের উন্নয়নশীল কয়েকটি রাষ্ট্র, যেমন ভিয়েতনাম, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন, ভারত, পাকিস্তান, প্রভৃতির করাবকাশের চিত্র তুলে ধরে বাংলাদেশের সঙ্গে তুলনা করেন এবং বাংলাদেশের কর ব্যবস্থাপনায় আরও অধিক করাবকাশের দাবী জানান। এছাড়াও আয়কর অধ্যাদেশ, ১৯৮৪ এর ধারাসমূহকে যুগোপযোগী করে তোলার আহ্বান জানান।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডেরসদস্য কানন কুমার রায় বলেন, ‘শিল্পের প্রসারের জন্য করাবকাশ যেমন গুরুত্বপূর্ণ, তেমনি রাষ্ট্রের প্রশাসনিক ও উন্নয়ন ব্যয় নির্বাহের জন্য রাজস্ব আদায়ও গুরুত্বপূর্ণ। করাবকাশ সুবিধা প্রদানের ক্ষেত্রে সরকারকে বিভিন্ন অর্থনৈতিক বিষয় সমন্বয় করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে হয়।’

তিনি ১৯৮৪ সালের আয়কর অধ্যাদেশ সময়োপযোগী করে তোলার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার আশ্বাস দেন। এছাড়া তিনি এই বৈঠক আয়োজনের জন্য বিডা ও বিল্ডকে ধন্যবাদ জানান এবং আলোচ্য বিষয়সমূহ আরও উচ্চ মহলের দৃষ্টিগোচর করার আশ্বাস জানান।

কাজী মোঃ আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘শিল্প ও বাণিজ্য বিকাশে ট্যাক্স হলিডে একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রণোদনা, যা সরকার বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিভিন্ন আঙ্গিকে দিয়ে আসছে। বিশেষ করে বেজা, বেপজা, হাইটেক পার্ক অথরিটির অধীনে স্থাপিত শিল্প প্রতিষ্ঠানসমূহকে বিভিন্ন মেয়াদে ও পরিমাণে করাবকাশ সুবিধা প্রদান করা হচ্ছে। সরকার বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বিকাশের ক্ষেত্রে সর্বদা সজাগ। সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় এবং প্রতিষ্ঠানসমূহ সকল দিক বিবেচনা করেই সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে।’

আজকের পত্রিকা/এমইউ