বিচারের আশায় এখনও মরদেহ ঝুলে আছে গাছে। ছবি:সংগৃহীত

গাছে ঝুলছে একজনের মরদেহ। সম্প্রতি ওই মরদেহের সঙ্গে বেঁধে দেয়া হয়েছে খাটিয়া। কিন্তু তার পরেও গাছ থেকে নামানো হয়নি মরদেহ। খাটিয়াসহ গাছ থেকে ঝুলছে মরদেহ। অবশ্য মরদেহ উদ্ধার করে নিয়ে গিয়ে ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। মর্গ থেকে মরদেহ ফেরত নিয়ে আসার পরেও সৎকার করা হয়নি।

জানা গেছে, পুলিশ আত্মহত্যার কথা বললেও নিহতের পরিবারের দাবি এটা হত্যাকাণ্ড। সে কারণে মাসের পর মাস গ্রামে প্রবেশের মুখে বড় গাছে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে মরদেহ। এমনকি পুলিশের তদন্তের ওপর আস্থা নেই বলে মরদেহ সৎকার করতে রাজি নয় নিহতের পরিবার।

গত বছরের ডিসেম্বরে ২২ বছর বয়সী ভাটিয়া গামারের ঝুলন্ত মরদেহ দেখা যায় গাছটিতে। ময়নাতদন্তের পর থেকে আবারো তার মরদেহ গাছে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে।

ভারতের গুজরাটের সাবরকাঁথা গ্রামের ওই ঘটনায় নিহতের পরিবারের দাবি, ওই যুবক এক মেয়েকে ভালোবাসত। সেই মেয়ের পরিবারের লোকজন তাকে খুন করেছে। পুলিশ মামলা নিষ্পত্তি করে দিলেও সুবিচারের দাবিতে অনড় পরিবার।

আজকের পত্রিকা/এসএমএস