বাস টার্মিনাল দখল নিয়ে সংঘর্ষ : কার্যালয় সিলগালা করে দিল প্রশাসন

সাতক্ষীরা বাস টার্মিনালের দখল নিয়ে মালিক পক্ষের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে উভয় পক্ষের কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছে। বাস টার্মিনাল দখলকে কেন্দ্র করে বুধবার বেলা ১০টার দিকে উত্তেজনা ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। অবশেষে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মালিক সমিতি কার্যালয়টি সিলগালা করে দেয়।

সাতক্ষীরা বাস টার্মিনালকে কেন্দ্র করে জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি সাইফুল করিম সাবু ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবু আহম্মেদের মধ্যে দীর্ঘদিন বিরোধ চলে আসছে। সাইফুল করিম সাবুর নেতৃত্বে বাস টার্মিনাল চলছিল।

জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবু আহম্মেদ জানান, ৬ এপ্রিল শহরের লেকভিউতে মালিক সমিতির সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় নির্বাচনের তপশীল ঘোষণা করা হয়।

সাতক্ষীরা সদর আসনের সংসদ সদস্য মীর মোস্তাক আহমেদ রবি স্বাক্ষরকৃত ১৫ সদস্য বিশিষ্ঠ একটি কমিটি ঘোষণা করা হয়।

ঐ কমিটি টার্মিনাল দখল করে নেয়।সাইফুল করিম সাবুর নেতৃত্বাধীন ঐ কমিটি কোন কারণ ছাড়াই বাস মালিক শেখ জামাল উদ্দিন, জাহাঙ্গির হোসেন, নাছের উদ্দিন, কবির হোসেনসহ বিভিন্ন মালিকদের বাস চলাচল বন্ধ করে দেন। ওই বাস মালিকদের সঙ্গে নিয়ে বন্ধ করার কারণ জিজ্ঞেস করলে সাবু গ্রুপের লোকজন হামলা চালায়। হামলায় ৭-৮ জন আহত হয়েছে।

অপরদিকে, জলা শ্রমিক লীগের সভাপতি সাইফুল করিম সাবু গ্রুপের সমর্থকরা জানান, ১০-১২ জন এসে আবু আহম্মেদের নেতৃত্বে আতর্কিতভাবে হামলা চালিয়েছে। হামলায় সাবুসহ তিনজন আহত হয়েছে।

এদিকে, এ ঘটনার পর পরই অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইলতুৎমিশের নেতৃত্বে ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরবর্তীতে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সজল মোল্ল্যার নেতৃত্বে টার্মিনালের অফিস কক্ষ সীলগালা করা হয়েছে।

সাতক্ষীরা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, নির্বাচন না হওয়া পর্যন্ত মালিক সমিতির কার্যালয় জেলা প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণে থাকবে।

নির্বাচনের পর বিজয়ীদের কাছে সমিতির কার্যালয় হস্তান্তর করা হবে। কার্র্যালয়টি সিলগালা করেছেন ম্যাজিষ্ট্রেট। বর্তমানে পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

-বৈশাখী/সাতক্ষীরা