বগুড়ার নন্দীগ্রামে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আখতারের হস্তক্ষেপে দশম শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রী বাল্য বিবাহ বন্ধ হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাতে নন্দীগ্রাম পৌর এলাকার বেলঘড়িয়া গ্রামের আমিনুল ইসলামের মেয়ে স্কুল ছাত্রী আমিনা খাতুন (১৫) সাথে একই গ্রামের সাইফুল ইসলাম পেন্সিলের ছেলে সাকিব হোসেন (১৫) বিয়ে হওয়ার কথা ছিল।

খবর পেয়ে রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আখতার মেয়ের বাড়িতে গিয়ে এ বাল্যবিবাহ বন্ধ করে দেন। এসময় মেয়ের বাবা আমিনুল ইসলাম তার মেয়েকে প্রাপ্ত বয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিবে না মর্মে অঙ্গীকার নামা দেন।

নন্দীগ্রাম থানার সহকারী উপ-পরির্দশক (এএসআই) মহসিন আলী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তাছলিমা আজম/নন্দীগ্রাম