পদার্থ বিজ্ঞানের বরেণ্য অধ্যাপক ড. অজয় রায়ের মরদেহ তার শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী বারডেম হাসপাতালে দান করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ৯ ডিসেম্বর সোমবার তার ছোট ছেলে অনুজিৎ রায় বারডেম হাসপাতালে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন।

নিজের মৃতদেহ দান করে যাওয়ার ইচ্ছা ছিল অধ্যাপক অজয় রায়ের। মৃত্যুর আগে অনেকবার সে কথা তিনি পরিবারকে জানিয়েছেন। সেই অনুযায়ী তারা অজয় রায়ের দেহ বারডেম হাসপাতালে দান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

গত ২৫ নভেম্বর শারীরিক অবস্থা খারাপ হলে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। হাসপাতালের নিবিড় পরিচার্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি। ৯ ডিসেম্বর সোমবার দুপুর ১২টা ৩৫ মিনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। অজয় রায়ের বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর।

২০১৫ সালে বইমেলা শেষে জঙ্গিদের হাতে নির্মমভাবে হত্যার শিকার বিজ্ঞানমনষ্ক লেখক অভিজিৎ রায়ের বাবা অজয় রায়। গত ২৮ অক্টোবর আদালতে ছেলে হত্যা মামলায় সাক্ষ্য দিয়েছিলেন তিনি। জঙ্গি হামলায় ছেলে নিহত হওয়ার পর বছরখানেক আগে স্ত্রীকেও হারিয়েছিলেন অধ্যাপক এই বরেণ্য শিক্ষক। বড় ছেলে অভিজিৎ রায় হত্যার বিচার শেষ হওয়ার আগেই চিরবিদায় নিলেন তিনি।

আজকের পত্রিকা/সিফাত