বিক্রি নিষিদ্ধ ৫২টি পণ্য। ছবি : সংগৃহীত

সম্প্রতি বিএসটিআই সার্ভিল্যান্সের মাধ্যমে খোলাবাজার থেকে বিভিন্ন পণ্যের ৪০৬টি নমুনা কিনে পরীক্ষা করে। প্রাপ্ত পরীক্ষণ প্রতিবেদনের মধ্যে ৫২টি নমুনা নিম্নমানের পাওয়া যায়। এর মধ্যে ১৮টি প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স স্থগিত ও ৭টি প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স ইতোমধ্যে বাতিল করা হয়েছে। অবশিষ্ট ২৭টি পণ্যের লাইসেন্সও বাতিল করেছে বিএসটিআই।

১৫ মে বুধবার সাতটি প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স বাতিল করে বিএসটিআই। সেগুলো হলো- আল সাফি ড্রিংকিং ওয়াটার, শাহারী অ্যান্ড ব্রাদার্সের নারজান ড্রিংকিং ওয়াটার, মর্ন ডিউ পিওর ড্রিংকিং ওয়াটার, আর আর ডিউ ড্রিংকিং ওয়াটার, কেরাণীগঞ্জের শান্তা ফুড প্রডাক্টসের টেস্টি, তানি ও তাসকিয়া এবং কামরাঙ্গীরচরের জাহাঙ্গীর ফুড প্রডাক্টসের প্রিয়া ব্র্যান্ডের সফট ড্রিংক পাউডার এবং মিরপুরের বনলতা সুইটস অ্যান্ড বেকারির বনলতা ব্র্যান্ডের ঘি।

১৫ মে বুধবার লাইসেন্স স্থগিত হওয়া পণ্যগুলোর মধ্যে রয়েছে সরিষার তেলে সিটি অয়েল মিল-গাজীপুর (তীর), গ্রিন ব্লিসিং ভেজিটেবল অয়েল-নারায়ণগঞ্জ (জিবি), শবনম ভেজিটেবল অয়েল-নারায়ণগঞ্জ (পুষ্টি), বাংলাদেশ এডিবল অয়েল-নারায়ণগঞ্জ (রূপচাঁদা); সুপেয় পানির মধ্যে আররা ফুড অ্যান্ড বেভারেজ (আররা), ডানকান প্রোডাক্ট (ডানকান), দিঘী ড্রিংকিং ওয়াটার (দিঘী); প্রাণ এগ্রো লিমিটেডের প্রাণ ব্র্যান্ডের লাচ্ছা সেমাই; হলুদের গুড়ার মধ্যে ড্যানিশ, প্রাণ ও ফ্রেশ। কারী পাউডারের মধ্যে প্রাণ ও ড্যানিশ; আয়োডিনযুক্ত লবণের মধ্যে এসিআই ও মোল্লা সল্ট; ধনিয়া গুড়ার মধ্যে এসিআই পিওর, নুডলসের মধ্যে নিউ জিল্যান্ড ডেইরির ডুডলস এবং চিপসের মধ্যে কাশেম ফুডের সান ব্র্যান্ড।

লাইসেন্স স্থগিত করা প্রতিষ্ঠানগুলো হলো : 

১. বাঘাবাড়ী স্পেশাল ঘি কোং, ৩৮০/বি, দক্ষিণ গোড়ান, ঢাকা। ঘি বাঘাবাড়ী স্পেশাল ০১৯০১
২. নিশিতা ফুডস, বিসিক শি/ন, খাদিমনগর, সিলেট।
৩. মঞ্জিল ফুডস অ্যান্ড প্রোডাক্টস, বিসিক শি/ন, গোটাটিকর, সিলেট। হলুদের গুঁড়া মঞ্জিল ৩০
৪. গ্রীন ল্যান্ডস মিল্ক প্রোডাক্টস, ৯৫, শরীফ হোসেন সড়ক, পাবলা, দৌলতপুর, খুলনা মধু গ্রীন ল্যান্ডস ০০-৪-০
৫. শান ফুড, জেল খানার মোড়, কুষ্টিয়া হলুদের গুঁড়া শান-
৬. মধুমতি সল্ট ইন্ডাস্ট্রিজ, দামোদর, ফুলতলা, খুলনা। আয়োডিনযুক্ত লবণ মধুমতি ০০১/২০১৮
৭. জেদ্দা ফুড ইন্ডাস্ট্রিজ, কাঠপট্টি, সদর, ঝালকাঠি লাচ্ছা সেমাই জেদ্দা-
৮. নূর সল্ট ইন্ডাস্ট্রিজ, ফরিয়াপট্টি, সদর, ঝালকাঠি আয়োডিনযুক্ত লবণ নূর স্পেশাল
৯. অমৃত ফুড প্রোডাক্টস্, অমৃতনগর, পাংশা, বাবুগঞ্জ, বরিশাল লাচ্ছা সেমাই অমৃত-
১০. নিউ ঝালকাঠি সল্ট মিলস্, আড়তদারপট্টি, সদর, ঝালকাঠি আয়োডিনযুক্ত লবণ দাদা সুপার-
১১. কোয়ালিটি সল্ট ইন্ডাস্ট্রিজ, ফরিয়াপট্টি, সদর, ঝালকাঠি আয়োডিনযুক্ত লবণ তিন তীর ০১/১৯
১২. লাকী সল্ট ইন্ডাস্ট্রিজ, ৪, মনোহরীপট্টি, সদর, ঝালকাঠি আয়োডিনযুক্ত লবণ মদিনা, স্টারশিপ –
১৩. তাজ সল্ট ইন্ডাস্ট্রিজ,২৭৪/২, স্টেশন মহল্লা, সদর, ঝালকাঠি আয়োডিনযুক্ত লবণ তাজ –
১৪. কাশেম ট্রেডার্স, ডাঁসমারী, বিনোদপুর, মতিহার, রাজশাহী। মরিচের গুড়া ডলফিন -৫
১৫. কাশেম ট্রেডার্স, ডাঁসমারী, বিনোদপুর, মতিহার, রাজশাহী। হলুদের গুড়া ডলফিন -৫
১৬. আমিরুল ট্রেডার্স, ডাঁসমারী, বিনোদপুর, মতিহার, রাজশাহী। মরিচের গুড়া সূর্য –
১৭. মধুফুল এন্ড প্রোডাক্টস, বিসিক শি/ন, গোটাটিকর, সিলেট। লাচ্ছা সেমাই মধুফুল –
১৮. মিঠাই সুইটস অ্যান্ড বেকারি, জালালাবাদ, চট্টগ্রাম। লাচ্ছা সেমাই মিঠাই ৮৯৪১১০৫০০৭১০
১৯. কে আর ফুড ইন্ডাস্ট্রিজ লি., সীতাকুণ্ড, চট্টগ্রাম। ময়দা কিং –
২০. ওয়েল ফুড অ্যান্ড বেভারেজ কোং, আতুরার ডিপো, ষোলশহর, চট্টগ্রাম। লাচ্ছা সেমাই ওয়েল ফুড উ১৮০২২৭
২১. রূপসা ফুড প্রোডাক্টস, ঢাকা ট্রাঙ্ক রোড, ঈদগাহ্, চট্টগ্রাম। ফারমেন্টেড মিল্ক রূপসা –
২২. ইমতিয়াজ ব্রেড অ্যান্ড ফুড প্রোডা., ৩৯৯, আছাদগঞ্জ, চট্টগ্রাম। বিস্কুট মেহেদী-
২৩. মিষ্টি মেলা ফুড প্রোডাক্টস, ফিরিঙ্গিবাজার, চট্টগ্রাম। লাচ্ছা সেমাই মিষ্টি মেলা-
২৪. তাঈয়েবা ফুড প্রোডাক্টস, বুধল, চান্ডিয়ারা, সদর, বি-বাড়িয়া চানাচুর মক্কা-
২৫. মধুবন ব্রেড অ্যান্ড বিস্কুট ইন্ডা. প্রা. লি., পাঁচলাইশ, চট্টগ্রাম। লাচ্ছা সেমাই মধুবন খ.ক ১৮

উপরের এ পণ্যগুলো মানোন্নয়ন শেষে পুনঃঅনুমোদন ছাড়া সংশ্লিষ্ট উৎপাদনকারী, সরবরাহকারী, পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতাদের বিক্রি-বিতরণ, সংরক্ষণ ও বাণিজ্যিক বিজ্ঞাপন প্রচার থেকে বিরত থাকার জন্য নির্দেশ দিয়েছে বিএসটিআই। সংশ্লিষ্ট উৎপাদনকারীদের বিক্রিত মালামাল বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের ২৪ (চব্বিশ) ঘণ্টার মধ্যে বাজার থেকে প্রত্যাহারের নির্দেশ দেওয়া যাচ্ছে। একইসঙ্গে ভোক্তাসাধারণকে পণ্যগুলো কেনা থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানিয়েছে মান নিয়ন্ত্রক এ প্রতিষ্ঠানটি।

মনোন্নয়ন করে আবার লাইসেন্স গ্রহণের আগে এসব পণ্য উৎপাদন, সরবরাহ এমনকি খুচরা বিক্রি বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে এসব পণ্য বাজার থেকে প্রত্যাহারের নির্দেশ দেওয়ার পাশাপাশি এর সংরক্ষণ ও বাণিজ্যিক প্রচার বন্ধ করারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বিএসটিআই বলছে, রোজা শুরুর আগে বাজারে গোপন অভিযান চালিয়ে ৪০৬টি পণ্যের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল। এসব পণ্যের মধ্যে ৫২টি পণ্য নিম্নমানের হিসাবে চিহ্নিত হয় ল্যাবরেটরি পরীক্ষায়। সম্প্রতি সংশ্লিষ্ট বিপণন কোম্পানিগুলোকে এ বিষয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়।

বিএসটিআইয়ের সার্টিফিকেশন মার্কস বিভাগের উপ-পরিচালক রিয়াজুল হক বলেন, নোটিশের জবাব দেওয়ার সময় শেষ হওয়ার পরও উত্তর না আসায় ওই সব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

আজকের পত্রিকা/আ.স্ব/জেবি