আসাদুজ্জামান স্বপ্ন
সিনিয়র রিপোর্টার

ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি। ছবি : সংগৃহীত

তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের মাতৃভাষা বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে যে আন্দোলন শুরু হয়েছিল, সেটিই ১৯৭১ সালে স্বাধীন বাংলাদেশ সৃষ্টির বীজ বোপন বলে মন্তব্য করেন ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি। ৭ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার পশ্চিমবঙ্গের কলকাতায় তিন দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক বইমেলার উদ্বোধনকালে তিনি কথা বলেন।

প্রণব মুখার্জি বলেন, ‘বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে যারা অংশ নিয়েছিলেন তাদের মাথায় একটাই বিষয় ছিল, তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে যেন বাংলা রাষ্ট্রভাষার মর্যাদা লাভ করে ভারতবর্ষ ভাগের পর উর্দুকে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানেও দাফতরিক ভাষা হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছিল। কিন্তু অঞ্চলের বাসিন্দারা তাদের মাতৃভাষা বাংলাকেই চাইছিলেন দাফতরিক ভাষা হিসেবে। তখন শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বাধীন ভাষা সংগ্রাম শেষ পর্যন্ত ১৯৭১ সালে পরিণতি লাভ করে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের মধ্য দিয়ে

প্রণব মুখার্জি বলেন, বাংলাদেশ পশ্চিমবঙ্গে প্রায় ২০ কোটি মানুষ বাংলা ভাষায় কথা বলেন। তাই বিপুলসংখ্যক মানুষের ভাষার প্রতি যথাযথ সম্মান দেখাতে হবেমানবাধিকার মুক্তির বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে সাবেক রাষ্ট্রপতি বাংলা সাহিত্যের সুদীর্ঘ সমৃদ্ধ ইতিহাস তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ৬০০ বছর আগে কবি চন্ডিদাস মানবতা নিয়ে অল্প শব্দে বিশাল মর্মার্থ প্রকাশ করে বলেছিলেন, ‘সবার ওপরে মানুষ সত্য, তাহার ওপরে নাই

তিন দিনব্যাপী এই বইমেলায় বাংলাদেশভারতসহ ১০টি দেশের ৬৬ অতিথি অংশ নিচ্ছেন। এতে থাকছে সাহিত্য, সমসাময়িক বিভিন্ন বিষয় শিল্পকলার বিভিন্ন ক্ষেত্র নিয়ে ২৪টি অধিবেশন

সম্প্রতি দেশটির সরকারের সর্বোচ্চ বেসামরিক পদকভারত রত্নলাভ করেন প্রণব মুখার্জি। পুরস্কারে আরও ভূষিত হন ভারতের জনসংঘ নেতা নানাজি দেশমুখ আসামের বিখ্যাত গায়ক ভূপেন হাজারিকা