শেষ টি-টোয়েন্টিতে টস জিতে ভারতকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় বাংলাদেশ দলপতি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। নাগপুরের বিদর্ভ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হয়েছে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায়। আগে ব্যাটিং করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৭৪ রান তুলে ভারত। এই সিরিজ জিততে হলে বাংলাদেশকে তুলতে হবে ১৭৫ রান।

ম্যাচের শুরুতেই ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই ভারতের ডেঞ্জারম্যান রোহিত শর্মাকে সাজঘরে পাঠিয়েছেন পেসার শফিউল ইসলাম। দলীয় মাত্র ৩ রানেই ভারতীয় ওপেনারকে ফিরিয়েছেন তিনি। রোহিত ফিরেছেন মাত্র ২ রানে।

রোহিতের পর আরেক ওপেনার শিখর ধাওয়ানকেও ফিরিয়েছেন শফিউল। ষষ্ঠ ওভারে শফিউলের বলে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে রিয়াদের হাতে ক্যাচ হয়েছেন ধাওয়ান। ১৬ বলে ১৯ রান করেছেন তিনি।

দুই উইকেট হারানোর পর শ্রেয়াস আইয়ারকে সঙ্গে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন লোকেশ রাহুল। ব্যাট হাতে চার ছক্কার ফুলঝুরি ঝরাতে শুরু করেন এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান। ৩৩ বলেই রাহুল তুলে নেন অর্ধশতক। ইনিংসের ১৩তম ওভারে দ্বিতীয় স্পেলে বল করতে আসেন আল আমিন। আর এসেই ওভারের প্রথম বলে নিজের প্রথম শিকারে পরিণত করেন টাইগার বোলারদের ওপর ভয়ংকর তাণ্ডব চালানো লোকেশ রাহুলকে। আল আমিনকে লং অফের উপর দিয়ে মারতে গিয়ে লিটন দাসের হাতে বন্দী হন রাহুল। আউট হওয়ার আগে অবশ্য ৭ চারে মাত্র ৩৫ বলে ৫২ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে যান রাহুল।

এরপর উইকেটে থিতু হওয়া শ্রেয়াস আইয়ার ভারতীয় দলের হাল ধরেন। ১৫তম ওভারে বল করতে আসা আফিফ হোসেনের প্রথম তিনি বলেই হাঁকান তিনটি ওভার বাউন্ডারি। আর চতুর্থ বলে সিঙ্গেল নিয়ে পূর্ণ করেন টি-টোয়েন্টিতে নিজের প্রথম অর্ধশতক। ইনিংসের ১৭তম ওভারে নিজের কোটার শেষ ওভারে বল হাতে আসেন সৌম্য সরকার। রিশব পন্ত সৌম্যকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে মিস করে বসেন বলটিই, আর এতেই বোল্ড হয়ে ফিরতে হয় এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যানকে। শেষদিকে শিভম-পাণ্ডে মিলে ১৭৪ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে ভারত। শিভম ৯ ও পাণ্ডে ২২ রানে অপরাজিত ছিলেন।

এর আগে সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৭ উইকেটে জিতেছিল বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ম্যাচে ৮ উইকেটে জিতেছিল ভারত। সুতরাং, আজকের ম্যাচে যারা জিতবে তারাই সিরিজ জিতে নিবে। এর আগের দুই ম্যাচে যারা পরে ব্যাট করেছে তারাই জিতেছে।

আজকের ম্যাচে একাদশে একটি পরিবর্তন এনেছে বাংলাদেশ। ইনজুরির কারণে ছিটকে গেছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। একাদশে ঢুকেছেন মোহাম্মদ মিথুন।