বসন্তের বাতাসে ঘুরে বেড়ানো যতটা মজার, ঠিক ততটাই অস্বাস্থ্যকর। ছবি: সংগৃহীত

বসন্ত এসে গেছে। আবহাওয়ারও পরিবর্তন হচ্ছে। টানা কয়েক মাস শীতের পর একটু একটু করে গরম পড়তে শুরু করেছে। বসন্তের বাতাসে ঘুরে বেড়ানো যতটা মজার, ঠিক ততটাই অস্বাস্থ্যকর। ব্যাক্টেরিয়া, ফ্লু, জন্ডিসের ভাইরাস সক্রিয় থাকে প্রকৃতিতে। এই অবস্থায় নিজের খাদ্য তালিকার দিকে নজর রাখলে সুস্থ্যতা বজায় রাখা সম্ভব। চলুন জেনে নেই এই বসন্তের খাদ্য তালিকা।

টক দই

টক দইয়ে আছে অসাধারণ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। ছবি: সংগৃহীত

টক দইয়ে আছে অসাধারণ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। চিকিৎসকেরা সব সময় খাবার তালিকায় টক দই রাখার উপদেশ দেন। প্রতিদিন খাবারের সঙ্গে, ফলের সঙ্গে কিংবা খালি খাওয়া যাওয়ার জন্যও টক দই খুব উপকারী।

ওটস

ক্ষত সারতে এন্টিবায়োটিকের থেকেও দ্রুত কাজ করে ওটস। ছবি: সংগৃহীত

ওটসের মধ্যে রয়েছে বিটা গ্লুকান ফাইবার। এটি শরীরের ইনফ্লুয়েঞ্জা, হারপিস, অ্যানথ্রাক্স ভাইরাসের সংক্রমণ দূরে রাখতে সাহায্য করে। ক্ষত সারাতে আন্টিবায়োটিক থেকেও দ্রুত কাজ করে ওটস।

রসুন

রসুনের মধ্যে রয়েছে অ্যালিসিন। ছবি: সংগৃহীত

প্রতিদিন রসুন খেলে ঠাণ্ডা লাগার ঝুঁকি অনেকাংশে কমে যায়, কারণ রসুনের মধ্যে রয়েছে অ্যালিসিন। কোল্যাটারাল ক্যান্সার, স্টমাক ক্যান্সার প্রতিরোধেও রসুন উপকারী।

সামুদ্রিক মাছ

সামুদ্রিক মাছে রয়েছে সেলেনিয়াম ও ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড। ছবি: সংগৃহীত

সামুদ্রিক মাছ যেমন- ইলিশ, স্যালমন, চিংড়ি, কাঁকড়া ইত্যাদিতে রয়েছে সেলেনিয়াম ও ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড। এটি ফুসফুসের সংক্রমণ রোধে সাহায্য করে।

চা

ব্ল্যাক টি-র মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ এল-থিয়ানিন অ্যামাইনো অ্যাসিড। ছবি: সংগৃহীত

চিকিৎসকদের মতে টানা দুই সপ্তাহ প্রতিদিন ৫ বার ব্ল্যাক টি পান করলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় দশ গুন। ব্ল্যাক টি-র মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ এল-থিয়ানিন অ্যামাইনো অ্যাসিড।

লাল আলু

লাল আলুতে রয়েছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন এ। ছবি: সংগৃহীত

ত্বকের ব্যাক্টেরিয়া ও ভাইরাসজনিত রোগ থেকে দূরে থাকতে হলে প্রয়োজন ভিটামিন এ। লাল আলুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ। তাই এ বসন্তে খাদ্য তালিকায় রাখুন যথেষ্ট পরিমাণে লাল আলু।

আজকের পত্রিকা/সিফাত