এই ঋতুতে পুরো শরীরে চাই বিশেষ যত্ন। ছবি: সংগৃহীত

বসন্তে যেমন গাছ গাছালিতে নতুন পাতা ও ফুল ফোটে, ঠিক তেমনই আমাদের ত্বকও নতুন রূপ ধারণ করে। প্রকৃতির এই না শীত, না গরম আবহাওয়ার পরিবর্তনে আমাদের ত্বকে দেখা দেয় বিভিন্ন সমস্যা। শীত চলে গেলেও রেখে যায় এর শুষ্কতা বা রুক্ষতা। তাই শুরু হয় চামড়ার টান টান ভাব আবার তা থেকে ত্বক ফেটে যাওয়ার সম্ভবনাও থাকে। চুলের সাথে হাত-পাও হয়ে যায় রুক্ষ। এই ঋতুতে পুরো শরীরের চাই বিশেষ যত্ন। তাই এ সময় যতটা সম্ভব সচেতন থাকতে হবে।

ত্বকের যত্ন

ত্বকের আদ্রতা ধরে রাখতে সাহায্য করে মাইল্ড বা কম ক্ষারযুক্ত ফেসওয়াশ। শীতের সময় ত্বককে ময়েশ্চারাইজ রাখতে যেই ফেসওয়াশ ব্যবহার করেছেন, চাইলে সেটাই ব্যবহার করতে পারেন। আর শরীরের ত্বকের যত্ন নিতে হলে সাবানের পরিবর্তে ব্যবহার করুন শাওয়ার জেল কিংবা স্ক্রাবিং।। স্ক্রাবিং ত্বকের মৃতকোষগুলো তুলে ফেলে। ত্বকের পিএইচ ব্যালেন্স ঠিক থাকতে টোনার হিসেবে শসার রস ব্যবহার করতে পারেন।

চুলের যত্ন

চুলের রুক্ষতা এড়াতে দুই দিন পর পর শ্যাম্পু করা ভালো। শ্যাম্পু করার আগের দিন নারকেল তেল ও জলপাইয়ের তেল একসাথে গরম করে ম্যাসাজ করুন। বাড়তি যত্নের জন্য অ্যালোভেরা, টক দই, মেথি ইত্যাদি দিতে পারেন। আর বাইরের ধুলাবালি চুল আরো রুক্ষ করে ফেলে। তাই সব সময় স্কার্ফ ব্যবহার করতে হবে।

হাত পায়ের যত্ন

বাইরে থেকেই ফিরেই কুসুম গরম পানিতে শ্যাম্পু দিয়ে পা ভিজিয়ে রাখুন। এরপর ময়েশ্চারাইজার লাগান। পায়ে কালো ছোপ ছোপ দাগ পড়বে না। হাত পা ফেটে গেলে রাতে শুয়ে পড়ার আগে পেট্রোলিয়াম জেলি লাগিয়ে রাখবেন। রোদে পুড়ে হাত কালো হয়ে গেলে টক দইয়ের সাথে সামান্য হলুদ মিশিয়ে এই মিশ্রণ লাগাতে পারেন সপ্তাহে ৩ দিন। তাহলে কালো দাগ দূর হবে।

বাইরে যাওয়ার প্রস্তুতি

বাইরে যাওয়ার আগে সব সময় সানস্ক্রিন লোশন ব্যবহার করতে হবে। শুধু মুখেই নয়, হাত-পা, গলা সব জায়গায় লাগাতে হবে। তা না হলে রোদে শরীর পুড়ে কালো দাগ হয়ে যাবে। একবার ক্রিম লাগালে তা চার ঘণ্টা পর্যন্ত কাজ করে। তাই চার ঘণ্টা পর হাত মুখ ধুয়ে আবার সানস্ক্রিন লাগাতে হবে।

এছাড়া বাইরে গেলে সানগ্লাস পরে থাকবেন। মাথা ও মুখ ঢেকে রাখার জন্য স্কার্ফ ব্যবহার করবেন। আর ব্যাগে রাখবেন ওয়েট টিস্যু রাখবেন।

আজকের পত্রিকা/সিফাত