৫৫ বছর যাবৎ ব্যবহার করে আসা পৈত্রীক বসত ভিটা ফিরে পেতে সংবাদ সম্মেলন করেছে সালেকুজ্জামান মোস্তাজির নামে দিন মুজুর।

রবিবার (১২ জানুয়ারী) বিকেলে সাপ্তাহিক লালমনিরহাট বার্তা অফিসে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে দিন মুজুর সালেকুজ্জামান মোস্তাজির বলেন, বাবা মৃত আলতাফ হোসেন মোস্তাজির নামে ১শতক জমির উপর নির্মান করে দির্ঘ ৫৫ বছর যাবত বসবাস করে আসছেন।

পাশেই থাকা সরকারী ১ শতক খাস জমিও ছিল। যে জমি লীজ নেয়ার জন্য জলা প্রশাসক বরাবরে আবেদনও করেন। হঠাৎ করে স্থানীয় তপন কুমার পাটগ্রাম ভূমি অফিসে মিথ্যা একটি অভিযোগ করে উক্ত জমি উচ্ছেদের নোটিশ প্রদান করেন।

যার প্রেক্ষিতে তিনি আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। যার শুনানী আগামী ১৬ জানুয়ারী ২০২০ ইং। আদালতের শুনানীর আগেই পাটগ্রাম ভূমি অফিসের এসিল্যান্ড দিপক দেব শ্বর্মা তার বসত ভিটা ভেঙ্গে দেয়।

এর আগে ওই জমি দখলের চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে স্থানীয় ওই তপন কুমার তার বিরুদ্ধে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করে। মহামান্য আদালত বিচার বিশ্লেষণ করে গত ২৩/০৭/২০১৯ ইং তারিখে মামলার রায় তার পক্ষে প্রদান করে।

এদতসত্বেও মিথ্যা অভিযোগে পাটগ্রাম এসিল্যান্ড তার বসত ভিটা উচ্ছেদ করে। বর্তমানে তিনি পরিবার পরিজন নিয়ে ৫৫ বছরের পৈত্রীক ভিটায় নির্বিঘ্নে বাস করার জন্য এবং তার আবেদিত ১ শতক খাস জমি বন্দোবস্ত প্রদানের জন্য সরকারের সহযোগীতা কামনা করেন।

এ ব্যাপারে পাটগ্রাম ভূমি অফিসের এসিল্যান্ড দিপক দেব শ্বর্মার সাথে কথা বললে তিনি জানান, কারো প্ররোচনায় নয়, এটা সরকারী জমি। সে হিসেবে এই জমির মালিক লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক। তার নির্দেশেই সেই খাস জমি উদ্ধার করা হয়েছে মাত্র।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বাউরা ইউনয়নের সাবেক ইউপি সদস্য ও বাউরা ইউনয়ন আ’লীগের সহ সভাপতি নুর বকত, স্থানীয় মোকলেছার রহমান, সাপ্তাহিক লালমনিরহাট বার্তার সম্পাদক বীর মুক্তযোদ্ধা শফিকুল ইসলাম কানুসহ জেলায় কর্মরত সকল সাংবাদিক বৃন্দ।

জিন্নাতুল ইসলাম জিন্না/লালমনিরহাট