বর্ষায় স্যাঁতস্যাঁতে পরিবেশে ব্যাকটেরিয়া ও ছত্রাকের সংক্রমণের পরিমাণ বেড়ে যায়। ছবি : সংগৃহীত

চলছে বর্ষাকাল। বছরের অন্যান্য সময়ের চেয়ে এসময়টাতে রোগ জীবাণু আক্রমণ করার প্রবণতা বেশি দেখা দেয়। তবে বৃষ্টি বলে তো আর বাড়িতে বসে থাকা যায় না। দৈনন্দিন কাজকর্মে তো বের হতেই হবে। আর সেখানেই হয় সমস্যা। রাস্তার জমে থাকা ময়লা পানিতে ভিজে যায় জুতো, জামা। এমন অবস্থায় ভেজা জামাকাপড় ও জুতো থেকে হতে পারে একাধিক সমস্যা। সর্দি-কাশির সমস্যা ছাড়াও হতে পারে ছত্রাক বা জীবাণুর সংক্রমণ-গত সমস্যা। তবে একটু সাবধান হলেই সমস্যাগুলি এড়িয়ে চলা সম্ভব। জেনে নিন, বর্ষায় ছত্রাকের সংক্রমণের সমস্যা এড়িয়ে ফ্রেশ থাকবেন কী করে-

১) বর্ষায় স্যাঁতস্যাঁতে পরিবেশে ব্যাকটেরিয়া ও ছত্রাকের সংক্রমণের পরিমাণ বেড়ে যায়। তাই গোসলের আগে এক মগ জলে কোনও অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল লোশন মিশিয়ে নিন। গোসল শেষে সেই জল ব্যবহার করে গা-হাত-পা ধুয়ে নিন। শরীর থাকবে তরতাজা। দুর্গন্ধ ও জীবাণুর সমস্যাও এড়ানো যাবে।

২) যদি কাদা জলে আপনার সাধের জুতো ভিজে যায়। সেই ভিজে পা থেকে হতে পারে ছত্রাকে সমস্যা। তাই বাড়ি ফিরেই সাবান দিয়ে পা অবশ্যই ধুয়ে নিন। ভেজা জুতো পরেও বেশিক্ষণ থাকবেন না।

৩) বর্ষায় গোড়ালি পর্যন্ত পা ঢাকা রবারের জুতো পরতে পারলে সবচেয়ে ভাল। তা না হলে রবারের বেল্ট বাঁধা জুতো। কাপড়ের স্নিকার্স বা চামড়ার জুতো পরে না বের হওয়াই ভাল। জুতো তো খারাপ হবেই, সঙ্গে ভেজা জুতো থেকে হতে পারে পায়ের ত্বকে জীবাণুর সংক্রমণজনিত সমস্যা।

৪) সারাদিন পা ভিজে থাকলে রাতে শোবার আগে অল্প গরম জল  দিয়ে পা ধুয়ে ফেলুন। শোবার আগে পায়ে লাগান কোনও হালকা ময়েশ্চারাইজার।

৫) কয়েক চামচ লেবুর রস পা ও হাতের আঙুলে মেখে নিন। ৫ মিনিট পরে সেটা ধুয়ে নিন। এতে পা ও হাতের আঙুলে ছত্রাকের সমস্যা এড়ানো যাবে।

৬) নখ কেটে ছোট রাখাই ভাল। নয়তো নখের ফাঁকে জীবাণু ও ছত্রাক জমে হতে পারে সংক্রমণ।

আজকের পত্রিকা/কেএইচআর/