মরদেহ। প্রতীকী ছবি

রাঙামাটির বরকল উপজেলায় তার সহকর্মীর ছুরিকাঘাতে ১জন নিহত আরো একজন গুরুতর আহত হয়েছে। নিহত নির্মাণ শ্রমিকের নাম আপ্রুসে মারমা (৩২)।

গুরুতর আহতের নাম ক্যাজারী মারমা (৩০)। তাদের বাড়ি বরকল সদর ইউনিয়নের কেয়াংপাড়া গ্রামে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়- গত কয়েক দিন আগে কেয়াং পাড়ার মৃত চাইলং মারমার ছেলে আপ্রুসে মারমা উপজেলার সীমান্তবর্তী ভুষনছড়া ইউনিয়নের ঠেগা মুখ জনশক্তি বৌদ্ধ বিহারের নতুন ভবন নির্মানের চুক্তি করে। বৌদ্ধ বিহারটি নির্মানের জন্য আপ্রুসে মারমা তার সহকারী হিসাবে দৈনিক মজুরীতে ক্যাজারী মারমা, মংমংচাই মারমা সহ ৫জন কে নিয়ে কাজ করতে যায়। কিন্তু মংমংচাই মারমা আগাম মজুরীর টাকা নিয়ে কাজে গেলেও কাজ না করে মদ্যপান করে থাকতো। এ ব্যাপারে মং মং চাই মারমার সাথে আপ্রুসে মারমার এ নিয়ে ঝগড়া হয়।

ঝগড়ার এক পর্যায়ে ৭ মে মঙ্গলবার রাত আনুৃমানিক ৯টায় খাওয়া দাওয়া সেরে ঘুমানোর সময় হঠাৎ মংমংচাই মারমার (৩২) হাতে থাকা ছুরি দিয়ে আপ্রুসে মারমাকে আঘাত করলে ঘটনাস্থলে তিনি খুন হন। দুজনের দস্তাদস্তিতে অন্য শ্রমিকরা আপ্রুসে মারমাকে রক্ষা করতে এগিয়ে আসলে এতে ক্যাজারী মারমাও গুরুতর আহত হয়। বর্তমানে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে খুন হওয়া আপ্রুসে মারমার লাশ ও আহত ক্যাজারী মারমাকে উদ্ধার করে।

এদিকে,খুন করার পরপরই মংমংচাই মারমা পালিয়ে যাই। মংমং চাই মারমা বরকল সদরের কেয়াং পাড়ার কার্বারী মংহ্লাচিং মারমার বড় মেয়ের জামাই। তার বাড়ি বান্দরবান জেলায় বলে জানা গেছে।

বরকল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মফজল আহম্মদ খান জানান- ঘটনার খবর পাওয়ার পর পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহত আপ্রুসে মারমার লাশ ও আহত ক্যাজারী মারমাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে।

তিনি আরো জানান-থানায় মংমংচাই মারমার বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেছে নিহত আপ্রুসে মারমার বড় ভাই মংহ্লাপ্রু মারমা।

বিজয় ধর, রাঙামাটি