জবির ক্যাফেটিরিয়া।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়ার আধুনিকরন হচ্ছে।এতে পাল্টে যাবে পুরোনো চেহারা। ইতোমধ্যে কাজ শুরু হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে জবির ক্যাফেটেরিয়ায় সরেজমিনে দেখা যায়, ক্যাফেটেরিয়ার ভেতরে নতুন করে পরিস্কার করা হয়েছে। দেওয়ালে চড়েছে নতুন রঙ। দেয়ালে নতুন টাইলস লাগানো হয়ে গেছে।

ক্যাফেটেরিয়ায় বসানো হয়েছে বিশুদ্ধ পানির লাইন তবে এখনো পানির ট্যাপের সাথে পানির লাইন সংযোগ না থাকায় তা শিক্ষার্থীরা ব্যবহার করতে পারছে না। এছাড়াও ক্যাফেটেরিয়ার উপর বাড়তি চাপ কমাতে ক্যাফেটেরিয়ার বাহিরে বিশুদ্ধ খাবার পানির বেশ কয়েকটি বেসিন লাগানো হয়েছে।

ইংরেজী শিক্ষা বিভাগের শিক্ষার্থী নেয়ামতউল্লাহ বলেন, ‘মনে হচ্ছে খাবারের মান উন্নয়ন হবে কিন্তু আরও উন্নত মানের খাবার যোগ করা উচিত এবং বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্তা করা উচিত’।

ইন্টারন্যাশনাল মডার্ণ ল্যাঙ্গুয়েজ (আইএমএল) বিভাগের ১ম বর্ষের শিক্ষার্থী জীবন বলেন, ” ১০ টাকার বিনিময়ে চা, চামুচা, চপ এবং শিংগারা চাই”।

ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের ১ম বর্ষের শিক্ষার্থী মোঃ জিন্নাহ বলেন, ‘ক্যাফেটেরিয়ার পরিবেশ আরো মনোমুগ্ধকর হতে হবে ও সুন্দর চেয়ার টেবিল রাখতে হবে এবং সে আরও বলেন খাবারের মান আরও উন্নত (যেমনঃ বার্গার, কাচ্চি, পিৎজা) করতে হবে’।

জবির ক্যাফেটিরিয়ায় শিক্ষার্থীরা।

একই বিভাগের শিক্ষার্থী উমর ফারুক বলেন, ‘ক্যাফেটেরিয়ায় কোমল পানি, আইসক্রিম থাকতে হবে এছাড়া তিনি আরও বলেন ক্যাফেটেরিয়ার রান্না ঘরের অবস্থা অনেক অপরিষ্কার তা দ্রুত পরিষ্কার করতে হবে এবং ক্যাফেটেরিয়ায় পর্যাপ্ত ডাস্টবিনের ব্যবস্থা করতে হবে’ ।

ক্যাফেটেরিয়ার নিয়মিত কর্মরত কর্মকর্তা রাজু আহমেদ বলেন, ‘ আগামী দুই সপ্তাহের মাঝে পূর্নাঙ্গ ক্যাফেটেরিয়ায় হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে’। একই সময়ে ক্যাফেটেরিয়ার আরেক নিয়মিত কর্মরত কর্মকর্তা আবু তাহের বলেন, ‘অতি তাড়াতাড়ি উন্নত খাবারের ব্যবস্থা করা হবে’।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান ও ট্রেজারার অধ্যাপক সেলিম ভূঁইয়া ক্যাম্পাসে সংস্কাররত ক্যাফেটেরিয়ার পরিদর্শনে এসেছিলেন।

এসময় উপাচার্য উপস্থিত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আমাদের ক্যাফেটেরিয়ার হবে ডে-নাইট ক্যাফেটেরিয়ার। বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ করার সাথে সাথেই সবাই বুঝবেন এখানে একটা বিশেষ ক্যাফেটেরিয়ার আছে। আমাদের এই ক্যাফেটেরিয়া হবে একটা অত্যাধুনিক ক্যাফেটেরিয়ার ।

তবে ক্যাফেটেরিয়ার কি কি কাজের পরিকল্পনা রয়েছে এ বিষয়ে আর বেশি কিছু না বলে কাজের মাধ্যমেই সংস্কারকৃত নতুন ক্যাফেটেরিয়া সবাই দেখবেন বলেন জানান জবি উপাচার্য।

জবির ক্যাফেটিরিয়া পরিদর্শনে উপাচার্য।

এসময় ট্রেজারার বলেন, আমরা ক্যাফেটেরিয়াটি নিয়ে যে পরিকল্পনা নিয়েছি তাতে ক্যাফেটেরিয়া নিয়ে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের যে সমস্যা রয়েছে তা লাঘব হবে। তবে আমাদের কাজটা শেষ করতে একটু সময় লাগছে। নতুন চেয়ার টেবিল থেকে নিয়ে শুরু করে সব কিছুই রেডি করা হচ্ছে।

মোটামুটি এক সপ্তাহের মধ্যে ক্যাফেটেরিয়া নিয়ে আমাদের যে পরিকল্পনা তা সবাই বুঝতে পারবে। এসময় উপাচার্য ও ট্রেজারারে সাথে উপস্থিত ছিলেন জবি নবাগত প্রক্টর ড. মোস্তফা কামাল, রেজিস্ট্রার প্রকৌ. ওহিদুজ্জামান প্রমুখ।

মিজানুর রহমান/জবি