গভীর নলকুপের মালিকানা বিরোধের জের ধরে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে ওই এলাকার দু’শ বিঘা জমির বোরো চাষ। ছবি : প্রতিনিধি

দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে একটি বিএডিসির গভীর নলকূপের মালিকানা বিরোধের জের ধরে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে ওই এলাকার ২শ’ বিঘা জমির বোরো চাষ। উপজেলার বেতদিঘী ইউনিয়নের হরগোবিন্দপুর মৌজার ঝকঝকা গ্রামে। সেখানে গভীর নলকূপের পানি সেচ দেয়া ড্রেন প্রতিপক্ষরা কেটে দেয়ায়, বোরো চাষের জন্য পানি সেচ নিতে পারছে না কৃষক।

ঘরগোবিন্দপুর গ্রামের বোরো চাষিরা বলেন, এই গভীর নলকূপটির মালিকানা জটিলতায় তাদের বোরো চাষ করা প্রায় অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। কৃষকরা জানায় বোরো রোপণের সময় অতিক্রম হয়ে যাচ্ছে অথচ গভীর নলকূপ থেকে জমিতে পানি যাওয়ার ড্রেনগুলো কেটে ফেলার কারণে, তারা জমিতে সেচ দিতে পারছেন না । ফলে তাদের বোরো রোপণ করা প্রায় অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।

জানা গেছে, হরগোবিন্দপুর মৌজায় ১৯৮৫ সালে ফসল উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিএডিসির সরকারি অনুদানে একটি গভীর নলকূপ স্থাপন করা হয়। নলকূপাটি ঝকঝকা গ্রামের বাসিন্দা সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল খালেক পরিচালনা করে আসছিল। আব্দুল খালেক মৃত্যুবরণ করার পর, তার ছেলে নুরুজ্জামান মালিকানা দাবি করলেও, একই এলাকার বসবাসরত গ্রামবাসীর একাংশ এই গভীর নলকূপটি কৃষক সমিতির দাবি করে। এই ঘটনায় গভীর নলকূপটি নিয়ে কয়েক বছর থেকে মালিকানা জটিলতার সৃষ্টি হয়। বোরো চাষ চলমান রাখতে গত বোরো মৌসুমে উপজেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বেতদিঘী ইউপি চেয়ারম্যানের তত্ত্বাবধানে গভীর নলকূপটি পরিচালিত হয়।

চলতি মৌসুমে আব্দুল খালেকের ছেলে নুরুজ্জামান তার বাবা (আব্দুল খালেকের) কাগজপত্র দেখিয়ে দিনাজপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ থেকে বিদ্যুৎ সংযোগ নিয়ে পানি সেচ দিতে গেলে, সেখানে বাধা হয়ে দাঁড়ায় প্রতিপক্ষ গ্রামবাসীর একাংশ। তারা গভীর নলকূপটির পানি সেচ দেয়া ড্রেন কেটে দিলে, গভীর নলকূপটি থেকে পানি সেচ নিতে পারছে না কৃষক। এতে করে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে ওই গভীর নলকূপের আওতায় থাকা প্রায় ২শ’ বিঘা জমির বোরো চাষি।

মৃত আব্দুল খালেকের ছেলে নুরুজ্জামান বলেন, এই গভীর নলকূপটি তার বাবা আব্দুল খালেক বিএডিসির নিকট থেকে থেকে ক্রয় করেছে, সেই সূত্রে এখন তিনি এই গভীর নলকূপটির মালিক, আর সেই কাগজপত্র দেখে, পল্লী বিদুৎ তার নামে বিদ্যুৎতের সংযোগ দিয়েছে।

এদিকে ঝকঝকা গ্রামের মৃত আবুল কাশেমের ছেলে সবুজ মিয়া বলেন, এই গভীর নলকূপটি কৃষক সমবায় সমিতির, অথচ নলকূপটির সাবেক ম্যানেজার মৃত আব্দুল খালেকের ছেলে নুরুজ্জামান নিজের বলে দাবি করায় এই বিরোধের সৃষ্টি হয়েছে।

এই বিষয়ে বিএডিসি দিনাজপুর জোন এর সহকারী প্রকৌশলী (নির্মান) শামিম আহম্মেদ এর সাথে যোগাযোগ করা হলে, তিনি বলেন হরগোবিন্দপুর মৌজার জেএল নং ১১৯ এর ২৫৬ নং দাগে সরকারি অনুদানে হরগোবিন্দপুর কৃষক সমবায় সমিতির নামে ২৮-০৫-১৯৮৫ তারিখে এই গভীর নলকূপটি স্থাপন করা হয়। কিন্তু সেই সময় জামানত বাবদ মাত্র ১৩ হাজার টাকা ছাড়া, আর কোনো টাকা কৃষক সমিতি জমা দেয়নি। ফলে এই গভীর নলকূপটি আব্দুল খালেককে ভাড়ায় পরিচালিত করার অনুমতি দেয়া হয়। এরপর আব্দুল খালেক এই গভীর নলকূপটি ভাড়ায় পরিচালনা করে আসছে।

এই বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুস সালাম চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ওই এলাকার কৃষক যাতে বোরো চাষ করতে পারে, সেই লক্ষ্যে উভয় পক্ষকে নিয়ে একটি সমঝোতা প্রচেষ্টা চলছে। অল্প সময়ের মধ্যে বিরোধ নিষ্পত্তি হয়ে যাবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

মেহেদী হাসান উজ্জল/ফুলবাড়ী/দিনাজপুর