রাসায়নিক মিশ্রিত ফলগুলি আপনার স্বাস্থ্যের উপর খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে। ছবি: সংগৃহীত

বাজার থেকে কেনা ফল এবং শাকসবজিতে কীটনাশক ও রাসায়নিক সার মেশানো হয় বলে আমরা সবাই-ই কম-বেশি জানি। বিভিন্ন ধরনের কীটনাশক ফল চাষের সময় ব্যবহার করা হয় এবং কখন কখনো ফলগুলি আকর্ষণীয় করে তুলতে রাসায়নিক পদার্থও ব্যবহার করা হয়।

এই রাসায়নিক মিশ্রিত ফলগুলি আপনার স্বাস্থ্যের উপর খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে। আপনি কীভাবে এই ক্ষতিকারক রাসায়নিক থেকে আপনার পরিবারকে রক্ষা করতে পারেন তার উপায় বের করেছে বিজ্ঞান। বাজার থেকে ফল কিনে আমরা সবাই পানি নিয়ে পরিষ্কার করে থাকি। কিন্তু আপনি জানেন কি পানি দিয়ে ফল পরিষ্কার করায় শুধুমাত্র ফলের খোসাটাই পরিষ্কার হয়। ভেতরের কীটনাশক বা রাসায়নিক পদার্থ অপসরণ হয় না। কীটনাশক বা রাসায়নিক পদার্থ অপসারণের একমাত্র উপায় বেকিং সোডা।

বেকিং সোডা ফলের ত্বকে ভিজে যাওয়া কীটনাশকগুলি অপসরণ করতে পারে না। ছবি: সংগৃহীত

জার্নাল অফ এগ্রিকালচারাল অ্যান্ড ফুড কেমিস্ট্রিতে প্রকাশিত একটি গবেষণায়, প্রতিটি পরিবারের মধ্যে পাওয়া এই সাধারণ পণ্যগুলো ফল পরিষ্কার করতে সাহায্য করতে পারে। গবেষণায় অংশ নিয়ে বিজ্ঞানীরা তিনটি বিভিন্ন পণ্য ক্লোরক্স ব্লিচ, বেকিং সোডা, এবং সাধারণ পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলেন এবং এতে অবশিষ্ট কীটনাশকের সংখ্যা ট্র্যাক করেন। তারা খুঁজে পেয়েছেন যে আপেলগুলো ১২ থেকে ১৫ মিনিট বেকিং সোডায় ভিজিয়ে রাখার পর আপেল থেকে সমস্ত কীটনাশক অপসরণ হয়ে গিয়েছে।

সোডিয়াম বাইকারবোনেট বা বেকিং সোডা দুই ধরণের কীটনাশক ভেঙ্গে ফেলার একটি চমৎকার পণ্য- থিয়াবেনেন্ডজোল এবং ফসমেট। তবে এটি অন্যান্য কীটনাশকের উপর অনুরূপ প্রভাব ফেলতে পারে না। তাছাড়া, বেকিং সোডা ফলের ত্বকে ভিজে যাওয়া কীটনাশকগুলি অপসারণ করতে পারে না।

আপনি যদি ফল বেকিং সোডায় ভিজিয়ে রাখার সময় না পান, তাহলে সাধারণ পানি দিয়ে পরিষ্কার করার সময় অল্প পরিমানে বেকিং সোডা ছিটিয়ে দিন।

আজকের পত্রিকা/রিয়া/সিফাত