প্রাণ সংশয়ে শ্রমিক নেতা সারোয়ার, নিরাপত্তার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

বিভিন্ন সময় ফেসবুক আইডি ও মুঠোফনের মাধ্যমে বাংলাদেশ বস্ত্র ও পোশাক শিল্প শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সম্পাদক মো. সারোয়ার হোসেনকে হত্যা ও প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়েছে।

সোমবার (১৪ অক্টোবর) আশুলিয়ায় অবস্থিত নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ তথ্য জানান তিনি। এসময় তিনি সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, ৭ অক্টোবর রাতে তার মুঠোফোনে ফোন দিয়ে ও এর আগে একটি ফেসবুক আইডি থেকে এই প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়। সেই সাথে অশ্রাব্য ভাষায় গালাগালি ও প্রাণনাশের হুমকিও প্রদান করা হয়। এনিয়ে নিরাপত্তার আশঙ্কায় আশুলিয়া থানায় সাধারণ ডায়রি করা করা হয়েছে। ডায়রি নম্বরে ৬৩৮, তারিখ ৯ অক্টোবর।

তিনি আরও জানায়, সোস্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে জানতে পারে তুংহাই গার্মেন্টস থেকে বিশ লাখ টাকা ঈসা সোয়েটার ছয় লাখ টাকা দাবী করার কথা অপপ্রচার করা হচ্ছে। কিন্ত তুংহাই গার্মেন্টস গত দুই বছর যাবৎ বন্ধ ও ঈসা সোয়েটার কয়েক মাস আগে বন্ধ হয়ে গিয়েছে।

এ ছাড়া ট্রেড ইউনিয়নের নামে হলিউড কারখানা থেকে ছয় লাখ টাকা নেওয়ার কথা বলাও হয়েছে। অবশ্য সেই কারখানায় আমার কোনো ট্রেড ইউনিয়ন নেই কিভাবে আমার সঙ্গে টাকা লেন দেন হলো বিষয়টি হাস্যকর ও উদ্দেশ্য প্রনদিত ছাড়া আর কিছু না।

এই শ্রমিক নেতা আরও বলেন, কোথাও আমার কোনো সম্পতি নেই। আমার ব্যাংক একাউন্টে শুধু ৯২০ টাকা জমা আছে। এর বাইরে আমার কোনো সম্পতি নেই এর বাইরে আমার কোনো সম্পতি বের করতে পারলে আমি আর শ্রমিকদের নিয়ে কাজ করবো না। এ ছাড়া যে কোনো শাস্তি নিতে প্রস্তুত। আমাদের প্রথমিক একটি অনুসন্ধানে এই অপপ্রচারকারীদের তথ্য পেয়েছি। তাদের মধ্যে শ্রমিক নেতা রাবিবুল হাসান সোহাগ। সোহাগের সঙ্গে কথা বলে জানাযায তিনি ছাড়াও আরও কয়েকজন শ্রমিক নেতা এই বিষয়টির সঙ্গে জরিত আছে।

সারোয়ার হোসেন বলেন, আশুলিয়া শিল্প অঞ্চলের একটি চক্র দীর্ঘ দিন যাবৎ শ্রমিকদের অপকৌশলে আন্দোলনে নামিয়ে শ্রমিকদের ছাঁটাই ও শিল্পের ক্ষতি করার লিপ্ত আছে। এই চক্রটি গত নির্বাচনের সময় ঢাকা-১৯ আসনের একটি দলের প্রার্থীকে হারানোর জন্য বিশষ মিশন নিয়ে মাঠে নেমেছিল। আমি ওই প্রার্থীর পক্ষে ছিলাম। এ জন্য ওই চিহ্নিত অপরাধী চক্রটি আমার সম্মান ক্ষুন্ন করার চেষ্টা করে এবং প্রাণনাশের হুমকি দেয়। স্বাভাবিক ভাবে জীবনযাপন কতে চাই এবং শ্রমিক শিল্প ও দেশের কল্যাণে কাজ করে যেতে চাই।

মাহিদুল মাহিদ/সাভার/ঢাকা